• ঢাকা
  • শনিবার, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২২ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্তদের সংবাদ সম্মেলন


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ২৬ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:১৯ পিএম
বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্তদের
সংবাদ সম্মেলন

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পার্শ্ববর্তী বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি এলাকায় ক্ষতিগ্রস্তদের সাথে পেট্রোবাংলার সমঝোতা চুক্তির ১০দফা বাস্তবায়নসহ অধিগ্রহণকৃত সম্পত্তিতে সোলার প্যানেলের স্থাপনের নামে জোরদখলের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসী।

ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসীর উদ্যোগে রবিবার (২৬ মে) সকাল ১১ টায় খনি সংলগ্ন পাতরাপাড়া মোড়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে গ্রামবাসীর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মুনতাসির আফসানি।

এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন মো. মামুনুর রশীদ মামুন, মো. মনিরুজ্জামান, আলমগীর হোসেন, মোয়াজ্জেম হোসেন হিটলার, আবুল কালাম আজাদ নুর মোহাম্মদ, গোলাম কিবরিয়া প্রমুখ।

লিখিত বক্তব্যে মুনতাসির আফসানি বলেন, ২০০৯ সালে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামবাসীর সাথে পেট্রোবাংলার সমঝোতা স্মারকে ১০ দফা দাবী চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। সেই ১০ দফা চুক্তি এখনো বাস্তবায়ন করা হয়নি। দ্রুত ১০ দফা চুক্তি বাস্তবায়ন করতে হবে। আমাদের কাছ থেকে অধিগ্রহণকৃত সম্পত্তিতে কে বা কাহারা পেশিশক্তি ব্যবহার করে সোলার প্রকল্প স্থাপনের নামে জোরজবরদস্তি করে দখল করার পায়তারা করছে। যা সম্পর্কে আমরা অবগত নই, এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত। জবরদখলের প্রতিবাদ করায় গ্রামবাসীর নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমরা সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি, মিথ্যা মামলা অতিসত্ত্বর প্রত্যাহার করা হোক।

দিনাজপুর-৫ আসনের (ফুলবাড়ী-পার্বতীপুর) সংসদ সদস্য সাবেক গণশিক্ষামন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি ভারতে চিকিৎসাধিন রয়েছেন। তিনি দেশে না ফেরা পর্যন্ত এলাকায় কোনোপ্রকার সোলার প্রকল্পের কার্যক্রম চালানো যাবে না।

অতিদ্রুত ২যুগ থেকে সংস্কার না হওয়ায় গ্রামে যাতায়াতের একমাত্র সড়কটি সংস্কার করতে হবে। জেলা প্রশাসক অফিসে আটকে থাকা কয়লাখনির অধিগ্রহণকৃত জমির ক্ষতিপূরণের বকেয়া টাকা সম্পূর্ণভাবে পরিশোধ করতে হবে এবং হয়রানি বন্ধ করতে হবে। কয়লাখনির কিছু কর্মকর্তা ও বহিরাগত কিছু অসাধু কোম্পানী স্থানীয় কিছু প্রতিনিধির সহযোগীতায় এই জমিতে বেড়া দিয়ে ঘেরা দিচ্ছে তা দ্রুত সরিয়ে ফেলতে হবে। ৭ দিনের মধ্যে আমাদের ফাটা ঘর-বাড়ী ক্ষতিপুরণের টাকা প্রদান করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জ্বালানী মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রীর  দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসীর আমাদের প্রতি সুদৃষ্টি দিয়ে দ্রুত দাবিগুলো বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।

শেষে আগামী ৭ দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ উল্লেখিত দাবিগুলো বাস্তবায়ন না হলে, কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেন বক্তারা।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image