• ঢাকা
  • সোমবার, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২০ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

সাংবাদিকতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে অপসাংবাদিকতা : তথ্য প্রতিমন্ত্রী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ০৪ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৩:৫৫ পিএম
গণমাধ্যমকর্মী আইন নিয়ে নতুন করে কাজ চলছে
তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত

নিউজ ডেস্ক : তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত বলেছেন, গণমাধ্যমকর্মী আইন নিয়ে নতুন করে কাজ চলছে। পরিবেশ সাংবাদিকতায় প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী। সরকার গণমাধ্যমের পূর্ণাঙ্গ স্বাধীনতা নিশ্চিতে কাজ করছে। 

জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া মিলনায়তনে শনিবার (৪ মে) বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি ।
  
তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, অপসাংবাদিকতার চর্চা মূল সাংবাদিকতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। প্রতিষ্ঠিত গণমাধ্যমগুলোর অনলাইনের লিস্ট, অনলাইন পোর্টালগুলোর লিস্ট আমি চেয়েছি। এর বাইরে আরও অনেক নিবন্ধনহীন গণমাধ্যম আছে। সবার দাবি, এগুলো বন্ধ করা। এপ্লিকেশন করা থাকলে চালু থাকবে। না হলে বন্ধ। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সারা দেশে গণমাধ্যমের মধ্যে শৃঙ্খলা আনা দরকার। আপনারাও (সাংবাদিক) বলেন, সাংবাদিকদের ন্যূনতম যোগ্যতার প্রয়োজন রয়েছে। 
 
তিনি বলেন, ‘১৭ কোটি মানুষের এ দেশে বিভিন্ন ধরনের ব্যত্যয় ঘটে। সরকারের অগোচরে অনেক ঘটনা ঘটে। শুধু পরিবেশ সুরক্ষা নয়, মুক্ত গণমাধ্যেমের পূর্ণাঙ্গ স্বাধীনতা নিশ্চিতেও সরকার কাজ করছে।’
 
প্রতিমন্ত্রী বলেন, মফস্বলের সাংবাদিকতায় তথ্যের সঙ্গে অনেক সময় অপতথ্যের মিশ্রণ ঘটে। তাই সেখানে সুরক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা আমরা করব।’
 
‘গণমাধ্যমকর্মী আইন নিয়ে নতুন করে কাজ করছি। প্রতিটি সংগঠন থেকে দুইজন প্রতিনিধির সঙ্গে বসে দ্রুততম সময়ে আইনটি সংসদে উত্থাপন করে পাস করার চেষ্টা করব’, যোগ করেন মোহাম্মদ আলী আরাফাত।
 
প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে গণমাধ্যম মুক্ত নয়, উন্মুক্ত হয়ে আছে। তাই বর্ডার লাইন টানা দরকার। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে কথা হয়েছে। গণমাধ্যমকর্মীরা আমাদের বন্ধু। তারা এড্রেস করে দেন। আমরা কাজ করতে পারি। সব সমালোচনাকে স্বাগত জানাই। উদ্দেশ্যমূলকভাবে ক্যাম্পেইনের বিরুদ্ধে নিন্দা জানাই।

তিনি আরও বলেন, রাইট টু ইনফরমেশন এক্ট প্রয়োজনীয়। কীভাবে আরও এফেক্টিভলি ইউজ করতে পারি সে ব্যাপারে কাজ চলছে। গণমাধ্যম জনগণের পক্ষে কোনো তথ্য চাইলে তা দেয়ার বাধ্যবাধকতা থাকবে। এ ব্যাপারে প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হবে।
 
তিনি উল্লেখ করেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে (ডিএসএ) মামলা করলেই জেলে নেয়া হতো। এখন সেটি নেই। সিএসএতে অপসাংবাদিকয়ায় কেউ যদি ভুক্তভোগী হয়, তারও সহায়তা চাওয়ার অধিকার আছে। পেশাদার সাংবাদিকতার সুরক্ষা দেয়ার জন্য আইন করা হয়েছে। অপব্যবহার হলে তার বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান থাকবে।’

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image