• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৮ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

সরকারি সহায়তায় বদলে যাচ্ছে ফুলবাড়ীর কৃষি 


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০২:০৪ পিএম
সরকারি সহায়তায় বদলে যাচ্ছে
ফুলবাড়ীর কৃষি 

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি : ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার খাদ্যের চাহিদা মেটাতে    একই জমি থেকে অধিক ফসল উৎপাদনের চেষ্টা করা হচ্ছে। কিংবা ওই জমিতেই কিভাবে বিভিন্ন ফসল ফলানো যায় ভাবতে হচ্ছে সেই ভাবনা। তাই কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি উৎপাদন ব্যয় কমাতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে  সরকার। কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে সরকারের গৃহীত এ উদ্যোগ বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে কৃষি বিভাগ। মাঠ পর্যায়ে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের তৎপরতায় এ অঞ্চলে কমেছে পতিত জমির পরিমাণ। কৃষি প্রণোদনায় বিনামূল্যে বিভিন্ন ফসলের উন্নত জাতের বীজ ও সার পেয়ে চাষাবাদে উৎসাহিত হচ্ছেন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকরা। আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদের পরামর্শ ও কৃষি প্রণোদনার সহায়তা এ অঞ্চলের কৃষিকে দিনদিন  সমৃদ্ধি করছে। 

উপজেলা কৃষি অফিস জানিয়েছে, ২০২৩-২৪ অর্থবছরে কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় গম, ভুট্টা, সরিষা, সূর্যমুখী, চিনা বাদাম, পেঁয়াজ, মুগ, মসুর ও খেসারি ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ৩ হাজার ৮৯৫ জন কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৭২৫ জন গম, ৫০৫ জন ভুট্টা, ২ হাজার ৩২০ জন সরিষা, ৫৫ জন সূর্যমুখী, ৮৫ জন চিনাবাদাম, ৫০ জন পেঁয়াজ, ৩৫ জন মুগ, ৩৫ জন মসুর ও ৭০ জন কৃষকে বিনামূল্যে খেসারির বীজ ও সার দেয়া হয়েছে। 

রবি মৌসুমের পাশাপাশি চলতি অর্থ বছরে কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় বোরো মৌসুমে চাষাবাদের জন্য ৩ হাজার ৭০০ জন কৃষকের মাঝে হাইব্রিড জাতের ধান বীজ এবং ৩ হাজার ৭২০ জন কৃষকের মাঝে উফসী জাতের ধান বীজ ও ২০ কেজি করে সার বিতরণ করা হচ্ছে। সরকারি সহায়তা ছাড়াও আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদের জন্য কৃষকদের উৎসাহিত করা হচ্ছে। পাশাপাশি কৃষকদের খেতের পরিচর্যায় প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিতে মাঠ পর্যায়ে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলেও দাবি কৃষি অফিসের। 

কৃষি অফিসের এমন দাবির সত্যতাও মিলেছে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে। দেখা গেছে, আমনের ফসল ঘরে তোলার পরপরই জমি পতিত না রেখে একই জমিতে রবি মৌসুমের চাষাবাদে ঝুঁকেছেন কৃষকরা। গম, সরিষা, ভুট্টা, আলু সহ নানান ফসল চাষাবাদের ব্যস্ততা এখন মাঠে প্রান্তরে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষকরা জানিয়েছেন, আগে বছরে দু'বার জমিতে শুধু ধানের আবাদ করতেন। এখন কৃষি অফিসের পরামর্শ নিয়ে একই জমিতে বারবার ফসল ফলান তারা। প্রণোদনার আওতায় বিনামূল্যে বীজ ও সার পেয়ে চাষাবাদে বাড়তি সুবিধা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রণোদনার সুবিধাভোগি কৃষকরা। 

উপজেলা কৃষি অফিসার নিলুফা ইয়াসমিন জানান, চলতি অর্থ বছরে কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় উপজেলার ১১ হাজার ৩১৫ জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষক বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ করা হচ্ছে। পাশাপাশি আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ ও একই জমিতে বারবার ফসল উৎপাদনের লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য মাঠ পর্যায়ে আমাদের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। 

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image