• ঢাকা
  • রবিবার, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২৫ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

দেশে শুরু হয়েছে নতুন করে শৈত্য প্রবাহ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৭:২১ এএম
শৈত্য প্রবাহ
শীতের সকালে গ্রামের সড়ক ফাইল ছবি

নিউজ ডেস্ক: শুক্রবার একটি নতুন শৈত্যপ্রবাহ শুরু হয়েছে। এদিন ঘন কুয়াশা ও ঠাণ্ডা বাতাস অব্যাহত ছিল, জীবনকে ব্যাহত করেছে এবং রাস্তা, জল এবং বিমান চলাচলকে প্রভাবিত করেছে।

তিন মাসব্যাপী শীত মৌসুমের এটি দ্বিতীয় কোল্ডওয়েভ যা ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়েছে।প্রথম শৈত্যপ্রবাহ সংক্ষিপ্ত ছিল এবং মাত্র চার দিন স্থায়ী হয়েছিল।৩ জানুয়ারী থেকে ৬ জানুয়ারী। এখন পর্যন্ত সর্বনিম্ন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৩ জানুয়ারী তেতুলিয়ায় ৭.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

১২ জানুয়ারি শুক্রবার কিশোরগঞ্জ ও চুয়াডাঙ্গার নিকলীতে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে টেকনাফে ২৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

 আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন ঢাকানিউজকে বলেন, ‘আগামী দুই দিন ঠান্ডার অবস্থা একই থাকবে।তিনি বলেন, আগামী ১৬ জানুয়ারির মধ্যে বাংলাদেশের আকাশ মেঘে ঢেকে যেতে পারে এবং পরের দিন বৃষ্টিপাত হতে পারে।তিনি বলেন, ‘মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা অব্যাহত থাকবে। মানিকগঞ্জ এ ঢাকা নিউজের সংবাদদাতা জানান , আরিচা-কাজিরহাট ও পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ছয় ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। 

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের উপ-মহাব্যবস্থাপক শাহ মোহাম্মদ খালেদ নেওয়াজ জানান, শুক্রবার বেলা সাড়ে ১২টায় আরিচা পয়েন্টে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয় এবং পাটুরিয়ায় ফেরি চলাচল ২টা ৪০ মিনিটে স্থগিত করা হয়।

পদ্মা নদীর মাঝখানে চারটি ফেরি আটকা পড়েছে।পরিষেবা স্থগিত হওয়ার পরে টার্মিনালে পণ্যবাহী গাড়ি সহ ৩৫০ টিরও বেশি যানবাহন আটকা পড়েছিল।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ঘন কুয়াশার কারণে তারা ভোর ৪টা ৪৫ মিনিটে একটি যাত্রীবাহী ফ্লাইটকে কলকাতা বিমানবন্দরে সরিয়ে নিতে বাধ্য করে।

 সকাল ৮টার পর ফ্লাইটটি ঢাকায় ফিরে আসে।রংপুরে ঢাকানিউজ সংবাদদাতা জানান, ঠাণ্ডাজনিত রোগে বিভাগের আট জেলার সরকারি হাসপাতালে মোট ১১ হাজার ৯৩২ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শিশুরা সর্দির যন্ত্রণা সহ্য করে, বেশিরভাগই রোটাভাইরাস দ্বারা সংক্রামিত, যা সাধারণত শিশু এবং ছোট শিশুদের মধ্যে গুরুতর ডায়রিয়া এবং বমি করে। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, চলতি মাসে হাসপাতালে মোট ৪২ জন দগ্ধ রোগী ভর্তি হয়েছেন।

আরএমসিএইচের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের রেজিস্ট্রার শাহ মোহাম্মদ আল মুকিত বলেন, মানুষের সচেতনতার অভাবে পোড়া দুর্ঘটনা ঘটছে।উষ্ণতার জন্য উত্থাপিত খড়ের আগুনে মানুষ প্রায়ই পুড়ে আহত হয়, তিনি বলেন।

আবহাওয়াবিদ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার মধ্যে ব্যবধান ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কম হলে ঠান্ডা অনুভূত হয়।রংপুরে গত সোমবার থেকে সূর্য অদৃশ্য রয়েছে। 

নিম্ন আয়ের গোষ্ঠী, বিশেষ করে মজুরি উপার্জনকারীরা বিশেষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় কারণ তাদের জীবনযাত্রা বাইরের কাজের উপর নির্ভর করে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এসডি

আরো পড়ুন

banner image
banner image