• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৬ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

বাংলাদেশে দুর্ভিক্ষের শঙ্কা নেই: ডব্লিউএফপি


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:৫৯ পিএম
বাংলাদেশে দুর্ভিক্ষের শঙ্কা নেই
কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক

নিউজ ডেস্ক : বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি) জানিয়েছে, সারা বিশ্বে খাদ্য সংকটের মধ্যেও বাংলাদেশে দুর্ভিক্ষের কোনো শঙ্কা নেই। বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) সচিবালয়ে সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকের পর এ তথ্য জানান কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে এখন আমন ধান কাটা চলছে। ডব্লিউএফপির কান্ট্রি ডিরেক্টর ডমেনিকো স্কালপেলি আমাকে বলেছেন তাদের কাছে তথ্য আছে, কোনোক্রমেই বাংলাদেশে খাদ্যসংকট বা দুর্ভিক্ষ হওয়ার সামান্যতম আশঙ্কা নেই। তবে যেহেতু এটি একটি রাজনৈতিক ইস্যু, তাই তিনি (ডমেনিকো স্কালপেলি) এটা নিয়ে সরাসরি কথা বলবেন না। আমি জানতে চেয়েছিলাম তাকে রেফার করতে পারব কি না। তিনি সম্মতি দিয়েছেন।’

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘ইউএনও, বিশ্বব্যাংকসহ বিভিন্ন মাল্টিলেটারেল ডোনার আমাদের বলেছে, তারা অনুমান করছে, পৃথিবীতে অতিসত্বর খাদ্যসংকটের আশঙ্কা আছে। কাজেই এটিকে বিবেচনায় নিয়েই সরকার কাজ করছে। কৃষি মন্ত্রণালয়ও কাজ করছে। স্বাধীনতার পর থেকেই আমাদের খাদ্য নিরাপত্তার জন্য বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি) সহযোগিতা করছে। ছয় বছর ধরে রোহিঙ্গাদের জন্য যে খাদ্য প্রয়োজন, সেটিও বিশ্ব খাদ্য সংস্থার মাধ্যমেই দেয়া হয়।’

তিনি বলেন, ‘বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির কান্ট্রি রিপ্রেজেনটেটিভ আমার সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন। সংকটের কথা অনেকেই বলছে। এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে তারা কীভাবে দেখছে এবং কীভাবে ভবিষ্যতে এখানে তারা কাজ করবে। অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আরেকটি বিষয়, অনেক নিচু এলাকায় অন্য সময় ধান লাগানো যেত না। কারণ, বিলে পানি এসে যায় ও ডুবে যায়। এ বছর বৃষ্টি না হওয়ায় এই বিলের জমিতেও ধান লাগিয়েছে। তারা বলেছেন যে, অতীতে যেকোনো সময়ের চেয়ে ভালো আমন পাবে। আমাদের এবার যে লক্ষ্যমাত্রা ছিল, তার চেয়েও ভালো ধান হয়েছে।’

কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশে গরিব মানুষ আছে, তাদের কষ্টও হচ্ছে। সীমিত বা নিম্ন আয়ের মানুষের কষ্ট হচ্ছে। তবে টাকা নিয়ে খাবার কিনতে পারছে না এমন পরিস্থিতি হয়নি।

তিনি বলেন, ‘আগামী আলু ও বোরোর জন্য যে সার দরকার, আমাদের তা আছে। আমাদের সর্বাত্মক প্রস্তুতি আছে।’

উৎপাদনে সমস্যা না থাকলেও বণ্টনে সমস্যা হওয়ার বিষয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘এটা আমাদের জন্য খুব বিব্রতকর। উৎপাদন আসলেই খুব ভালো হচ্ছে। এগুলোর সামাজিক-রাজনৈতিক কিছু সমস্যা আছে। আমি এটা অস্বীকার করবো না।

তিনি বলেন, পরিবহন খরচ বাড়ার পাশাপাশি নানা ভোগান্তি তো আছেই। আমার মনে হয়, আগামী ৬ থেকে ৭ দিনে সারা দেশ শীতের সবজিতে ভরে যাবে এবং এগুলো কেনার মানুষ পাওয়া যাবে না। কয়েক দিনেই দাম অর্ধেক হয়ে গেছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

অর্থনীতি বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image