• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৩ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

বাংলাদেশে খাদ্যপণ্য রফতানির প্রস্তাব মস্কোর


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২০ জুলাই, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১২:৪০ পিএম
বাংলাদেশে মস্কোর
খাদ্যপণ্য রফতানি

নিউজ ডেস্ক : খাদ্যপণ্য রফতানির বিষয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রস্তাবের চিঠি দিয়েছে ঢাকার রুশ দূতাবাস। চিঠিতে লাল ও হলুদ মসুরের ডাল, সয়াবিন তেল, হলুদ, বাদাম রফতানির প্রস্তাব দিয়েছে মস্কো।

চিঠিতে বলা হয়, জিটুজি ভিত্তিতে খাদ্যপণ্য রফতানি করতে চায় রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি প্রদিনটর্গ। সবচেয়ে প্রতিযোগিতামূলক ও সমন্বিত মূল্যে খাদ্যপণ্য সরবরাহের আগ্রহ দেখিয়েছে তারা।

কার্যকর উদ্যোগ নিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, রাশিয়ার প্রস্তাবনাটি পরীক্ষা-নীরিক্ষার কাজ চলছে। প্রয়োজনে অন্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গেও বৈঠক করা হবে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, প্রদিনটর্গ হলো রাশিয়ার একমাত্র রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি, যা জিটুজির ভিত্তিতে খাদ্যশস্য রফতানি করে থাকে। ২০১৩ সাল থেকে কোম্পানিটি বাংলাদেশে প্রাকৃতিক সার এবং খাদ্যশস্য রফতানি করে আসছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র  জানিয়েছে, রাশিয়ার প্রস্তাব নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে মস্কোর ওপর আরোপিত অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি বিবেচনায় নেয়া হবে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, দেশে বিদ্যমান মূল্যস্ফীতির ঊর্ধ্বগতি রোধে বাজারে নিত্যপণ্যের সরবরাহ বাড়াতে কাজ চলছে। রাশিয়া থেকে গম আমদানিকারক দেশের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। কিন্তু রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে গমের দাম বেড়ে গেছে।

পাঁচ বছর আগে রাশিয়া থেকে বাংলাদেশের আমদানি ছিল ৪৩ কোটি ৭১ লাখ ডলারের পণ্য। ২০২০-২১ অর্থবছরে এসে আমদানি বেড়ে দাঁড়ায় ৪৬ কোটি ৬৭ লাখ ডলার। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রথমবার উভয় দেশের বাণিজ্য শতকোটি ডলার পেরিয়ে দাঁড়ায় ১১১ কোটি ৩৮ লাখ ডলার। এরপর থেকে প্রতিবছরই এ বাণিজ্য শতকোটি ডলারের বেশি থাকছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক ও রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সূত্রে জানা গেছে, রাশিয়ায় বাংলাদেশ রফতানি করে বস্ত্রপণ্য, চিংড়ি, পাট সুতা, চামড়া, মোটরপার্টস, হোম টেক্সটাইল, টেরিটাওয়েল, ফুটওয়্যার, সিনথেটিক দড়ি, টেবিলওয়্যার ইত্যাদি। আর রাশিয়া থেকে বাংলাদেশ আমদানি করে গম, সার, লোহা, রাসায়নিক পণ্য, প্লাস্টিক, ইস্পাত ইত্যাদি।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরুর পর মস্কোর ওপর নানা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ পশ্চিমা দেশগুলো। এর প্রভাব পড়েছে সারাবিশ্বের অর্থনীতিতে। এমন পরিস্থিতিতে পশ্চিমাদের আরোপিত নিষেধাজ্ঞার জবাবে বিকল্প বাজার খোঁজার চেষ্টা করছে মস্কো। এরই অংশ হিসেবে ঢাকায় খাদ্য রফতানির প্রস্তাব দিলো রাশিয়া।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image