• ঢাকা
  • রবিবার, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২৫ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

একতা বন্ধু উন্নয়ন ফাউন্ডেশন, মানুষের দ্বারে মানুষের তরে


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৫০ এএম
মানুষের দ্বারে মানুষের তরে
একতা বন্ধু উন্নয়ন ফাউন্ডেশন

অলোক আচার্য:

২০ ডিসেম্বর ২০২০ সাল, সময় টা ছিলো করোনা কালীন সময়। সবাই যখন ঘর বন্দী তখন আমরা হাঁটুুরিয়া নাকালিয়া ইউনিয়নের কিছু বন্ধু যারা নাকালিয়া সাঁড়াশিয়া বণিক উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াকালীন আমার ছাত্র ছিল, তারা রাতে ব্যাটমিন্টন খেলে বাজারে যাচ্ছিল। ওদের একটি সামাজিক সংগঠন নিয়েই আজকের লেখা। কিভাবে সংগঠনটির শুরু এবং এর কার্যক্রম সম্পর্কে ওদের ভাষাতেই বলছি। 

তিন বন্ধু রাশেদ, মেহেদী, সাকিল রাস্তা দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় ১০ টা বাজে তখন একজন পাগলকে দেখতে পাই শীতে কাপছে তখন কেমন যেন ওদের মনে একটা অনুভূতির সৃষ্টি হয় যদি এদের জন্য কিছু করতে পারতাম। ঠিক তখন আমরা একটা উদ্যোগ নেয় ’চল আমরা একটা ফাউন্ডেশন খুলি’। তারপর নাঈম,রাশিদুল সহ  সবার মাঝে শেয়ার করার পর ১লা জানুয়ারি ২০২১ এ একতা বন্ধু উন্নয়ন ফাউন্ডেশন নামক একটা সেচ্ছাসেবী সংগঠন খুলি।  সংগঠন উদ্ভোদন করার আগের মুহুর্ত এবং পরের মুহুর্ত গুলো খুলো খুব কষ্টে পার করেছি। সবাই বলতো এরা ছোট মানুষ এ গুলো এরা পারবে না আরও পিছন থেকে কত কথা বলতো।

পরে ২০২১ সালের ২১ শে ফেব্রুয়ারি একটা ফ্রী মেডিকেল ক্যাপ করা হয় মোহনগঞ্জ বাজারে, ঐ ক্যাম্পে আমরা প্রায় ১০০ জন মানুষ কে গইইঝ ডাক্তার দ্বারা বিনামূল্যে ডাক্তার দেখানো সহ, আমরা প্রায় ৫০০ মানুষের বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ, ডাইবেটিস পরিক্ষা করে থাকি। আসলো প্রোগাম টা যত সহজে বললাম ও তো সহজ ছিলো না। তারপর থেকেই আমরা এখন পর্যন্ত ২০ টা ফ্রী মেডিক্যাল ক্যাম্প, ৫০  টা বিনামূলে রক্তের গ্রæপ নির্ণয় কাজ করেছি। করোনা কালীন সময় প্রসাসনের সহযোগিতায় আমরা সচেতনতা মূলক প্রোগাম ম্যাস্ক, লিফলেট,হ্যান্ড সেনিটাইজার বিতরণ করে আসছি, রোজার মধ্যে এতিম খানায় সহ, পথচারীদের মাঝে খাবার,ইফতার,ক্যালেন্ডার দিয়ে আসছি। সিলেটের বন্যায় আমরা এক ট্রাক শুকনা খাবার ও কিছু ঔষধ নিয়ে আমরা বন্যায় ভানবাসী দের মাঝে বিতরণ করে আসছি। আমাদের সংগঠন শুরু থেকেই আমরা থ্যালেসেমিয়া রোগে আক্রান্ত মদিনার চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়ে আসছি। মদিনার অপারেশনের যত টাকা খরচ আমরা বহন করে আসছি। বার্ষিক ঈদ সামগ্রী ও বার্ষিক শীত বস্ত্র বিতরণ করে আসছি।

ডেঙ্গু নিয়ে আমরা সচেতনতা মূলক প্রোগাম লিফলেট বিতরণ করে আসছি। বিশেষ করে অসহায় দুস্থ দের মাঝে আমাদের একটা ইভেন্ট সাপ্তাহিক বাজার পরিচালনা করে থাকি। অসহায় দুস্থ মানুষ সহ সামাজিক উন্নয়ন মূলক কাজে আমরা সব সময় অবদান রেখে আসছি।এতিম খানায় নানান ধরনের প্রোগাম করে থাকি,কিছু দিন আগে প্রায় ৪০০০০ টাকার টিন দেওয়া হয়েছে। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য আমরা প্রতি বছর বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি করে আসছি। বিশেষ করে আমাদের সংগঠন এর মাধ্যমে প্রতিদিন প্রায় ২/৩/৪ ব্যাগ রক্ত ডোনেট হচ্ছে।  আমাদের উদ্দেশ্য হলো রক্তের অভাবে কেউ যেন মারা না যায়, অসহায় দুস্থ মানুষের চিকিৎসা নিশ্চিত করা, নারী কর্মসংস্থা সৃষ্টি করা,খাবারের অভাবে কেউ যেন না থাকে,পথচারী ও এতিম দের নিয়ে কাজ করা। 

এই পরোপকারী ছেলেগুলোর কথা হলো, যারা সমাজে বিত্তবান আছেন তারা যদি তাদের আরেকটু সহযোগীতা করেন তাহলে তাদের কার্যক্রম আরও শক্তিশালী হয়, সাহায্যের পরিধি আরও বিস্তৃত হবে। তাদের কথায়, দশে মিলি করি কাজ, হারি জিতি নাহি লাজ।
 

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image