• ঢাকা
  • শনিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৫ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

১৪৩১ বরণে প্রস্তত দেশ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৬:০০ এএম
নব বর্ষ
প্রতীকী ছবি

সুমন দত্ত:  কড়া নিরাপত্তার মধ্যে বাংলাদেশ রবিবার পয়লা বৈশাখ উদযাপন হচ্ছে। বাংলা নববর্ষ-১৪৩১ এর প্রথম দিন আজ। সাধারণত প্রতি বছর বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, গান এবং মেলার মাধ্যমে বাংলা নববর্ষের সূচনা করে। এতে অংশ নেয় সমাজের সব শ্রেণি পেশার মানুষ। বয়স, ধর্ম এবং জাতি নির্বিশেষে সবাই পয়লা বৈশাখকে বরণ করে নেয়। ভোররাত থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত চলে।

রোববার দিবসটি উপলক্ষে সামাজিক-রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও এর আশপাশ এলাকায় বড় ধরনের অনুষ্ঠানসহ ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।জাতির অন্যতম বর্ণাঢ্য উৎসব পয়লা বৈশাখ উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

প্রধান বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলও এ উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে। রাষ্ট্রপতি শনিবার এক বার্তায় দেশে ও বিদেশে বসবাসরত সকল বাংলাদেশিকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বৈশাখের আগমন মানুষের জীবনে আসে নিত্য নতুন বার্তা নিয়ে।তিনি আরো বলেন, দুঃখ, ক্ষয় এবং ব্যর্থতা ভুলে সবাই মহা আনন্দে এবং উৎসবের মাঝে জেগে ওঠে।

প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে পয়য়লা বৈশাখকে সার্বজনীন উৎসব হিসেবে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেন, এটি সম্প্রীতির দিন এবং বাঙালির মহান পুনর্মিলনের দিন। শেখ হাসিনা ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে বিগত বছরের দুঃখ ও ব্যর্থতা ভুলে নতুন আনন্দে জেগে ওঠার আহ্বান জানান।

ভোররাতে রমনা বটমূলে ছায়ানটের বাদ্যযন্ত্রের মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হবে।

২০১৬ সালে ইউনেস্কোর মানবতার অধরা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের প্রতিনিধি তালিকায় খোদিত ঐতিহ্যবাহী মঙ্গল শোভাযাত্রা সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ প্রাঙ্গণ থেকে বের করা হবে। বাংলা নববর্ষ উদযাপনে ১৯৮৯ সাল থেকে আয়োজিত মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ।

শনিবার চারুকলা অনুষদে এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামাল জানান, সকাল সোয়া ৯টায় শোভাযাত্রা বের করা হবে।

মিছিলটি চারুকলা অনুষদ, শাহবাগ, ঢাকা ক্লাব ক্রসিং হয়ে ঢাবির শিক্ষক ছাত্র কেন্দ্রে এসে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। তিনি সর্বস্তরের জনগণকে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে সফল করার আহ্বান জানান।

তৃণমূলে ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠান পৌঁছে দিতে বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়েও মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হবে, কারণ এটি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছে।

পয়লা বৈশাখ উদযাপনে ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।ঢাকা দক্ষিণ সিটি ইউনিট নগরীতে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করবে। 

সকাল ৭টায় পুরান ঢাকার বাহাদুর শাহ পার্ক থেকে মিছিল শুরু হবে। এ কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে।

এছাড়া বাহাদুর শাহ পার্কের সামনে ঢাকা দক্ষিণ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফির সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।উদযাপনের সময় যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

রাজধানীর রমনা পার্কের একটি গুরুত্বপূর্ণ উদযাপন পয়েন্ট পরিদর্শন করার পর, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার হাবিবুর রহমান শনিবার বলেছেন, পয়লা বৈশাখ উদযাপনের সময় কোনও হামলার নির্দিষ্ট কোনও হুমকি নেই।

রমনা বটমূলে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি বলেন, অতীতের ঘটনা বিবেচনা করে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, বিকাল ৫টা পর্যন্ত লোকজনকে রমনা বটমূলে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে এবং সকল বহিরঙ্গন উদযাপন অবশ্যই সন্ধ্যার আগে শেষ করতে হবে।

শনিবার সন্ধ্যা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রমনা এলাকায় যান চলাচল কিছুটা নিয়ন্ত্রণ করা হবে এবং কিছু স্থানে বিকল্প রুট চালু করা হবে বলে জানান ডিএমপি প্রধান।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের মহাপরিচালক এম খুরশিদ হোসেন আরও বলেন, গোয়েন্দা তথ্য, সাইবার মনিটরিং ডেটা এবং অন্যান্য উত্সগুলির বিশদ পর্যালোচনার পরে, ব্যাটালিয়ন উদযাপনকে লক্ষ্য করে কোনও নির্দিষ্ট হুমকি শনাক্ত করেনি।

তিনি বলেছিলেন সমস্ত ইভেন্টের অবস্থানে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা কভারেজ থাকবে, যার মধ্যে ঢাকায় বোমা নিষ্ক্রিয়করণ ইউনিট এবং K9 স্কোয়াড মোতায়েন রয়েছে।

সাংস্কৃতিক সংগঠন বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সন্ধ্যার পর উৎসব উদযাপনে নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদ জানিয়েছে।

সংগঠনটি জানিয়েছে, উদযাপনের জন্য সরকারের বেঁধে দেওয়া সময়সীমার পর সন্ধ্যা ৬টা ১ মিনিটে ঢাকার শাহবাগে প্রজন্ম চত্বরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হবে।

ব্যবসায়ী সম্প্রদায় তাদের ঐতিহ্যবাহী হালখাতা, নতুন হিসাব বই খুলতে প্রস্তুত। এদিন ব্যবসায়ীরাও ক্রেতাদের মিষ্টি উপহার দেন।

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার মতে, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, বাংলাদেশ শিশু একাডেমি, বাংলা একাডেমি, গণগ্রন্থাগার বিভাগ, জাতীয় জাদুঘর, কবি নজরুল ইনস্টিটিউট, কপিরাইট অফিস, জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্ল্যাটফর্ম।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এসডি

আরো পড়ুন

banner image
banner image