• ঢাকা
  • বুধবার, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৯ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

সুদানে যুদ্ধ আটকা পড়েছে হাজার বাংলাদেশি


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৯:৩৩ পিএম
সুদান, বাংলাদেশি, খার্তুমে বাংলাদেশ দূতাবাস, রাষ্ট্রদূতের বাসভবন
সুদানে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর এ পর্যন্ত অন্তত চারশো মানুষ নিহত হয়েছে

নিউজ ডেস্ক: সুদানে সেনাবাহিনী ও মিলিশিয়া বাহিনীর মধ্যে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর সেখানে আটকা পড়েছে দেড় হাজারের বেশি বাংলাদেশি।

তারা জানিয়েছেন, প্রচণ্ড যুদ্ধের মধ্যে তারা নানা জায়গায় আশ্রয় নিয়ে রয়েছেন। খাবারের সংকট রয়েছে, পানি নেই। হঠাৎ করে যুদ্ধ শুরু হয়ে যাওয়ায় তারা আর্থিক সংকটেও পড়েছেন।

বাংলাদেশের কর্মকর্তারা বলছেন, সুদান থেকে কীভাবে বাংলাদেশিদের নিরাপদে দেশে নিয়ে আসা যায়, সেজন্য তারা কাজ করছেন।

এদের মধ্যে সাড়ে পাঁচশোর বেশি বাংলাদেশি ফেরত আসার জন্য নাম তালিকাভুক্ত করেছেন। কিন্তু কবে নাগাদ তারা দেশে আসতে পারবেন, সেই নিশ্চয়তা এখনো মেলেনি।

এপ্রিল মাসের ১৫ তারিখ থেকে সুদানে লড়াই শুরু হয় সেনাবাহিনী ও মিলিশিয়া র‍্যাপিড সাপোর্ট ফোর্সেস (আরএসএফ) বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশ এর মধ্যেই তাদের নাগরিকদের সরিয়ে নিতে শুরু করেছে।

গত ১৫ই এপ্রিল সুদানে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর এ পর্যন্ত অন্তত চারশো মানুষ নিহত হয়েছে, যাদের মধ্যে জাতিসংঘ কর্মীও রয়েছে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে। তবে প্রকৃত নিহতের সংখ্যা আরও বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ভয়-আতঙ্কে খার্তুমে শতাধিক বাংলাদেশি
সাত বছর আগে বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জ থেকে সুদানে গিয়েছেন মোঃ রাসেল মিয়া। যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর তিনিসহ আরও কয়েকজন খার্তুমের এক শহরতলীতে একটি ভবনে আশ্রয় নিয়েছেন।

মোঃ রাসেল মিয়া বিবিসি বাংলাকে বলছেন, ‘’প্রথম দিকে ভেবেছিলাম, কয়েকদিন পরেই যুদ্ধ বন্ধ হয়ে যাবে, তাই দেশে যাওয়ার কথা ভাবিনি। কিন্তু এখন পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে যাওয়ায় আমি দেশে ফিরে যেতে চাই। বাড়ির লোকজন প্রতিদিন কান্নাকাটি করছে, আমরাও সবাই ভয়ে আছি।‘’

তিনি জানান, তাদের ফ্ল্যাটে সাতদিনের মতো খাবার রয়েছে। এরপর কি হবে জানা নেই, কারণ দোকানপাট সব বন্ধ হয়ে আছে।

দেশটির বেশিরভাগ হাসপাতাল বন্ধ। পানি ও বিদ্যুতের সরবরাহ মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। আটকে পড়া লোকজনের বাড়িতেও খাবারের মজুত দ্রুত ফুরিয়ে আসছে। একারণে দেশটিতে মানবিক সঙ্কট তৈরি হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

‘’প্রতিদিন গোলাগুলির আওয়াজ আসছে। দুইদিন আগে আমাদের বিল্ডিংয়ের সামনেই একটা গোলা পড়েছে। বাইরে বের হলেই আধা-সামরিক বাহিনীর তল্লাশি করে। আমরা সবাই খুব ভয়ের মধ্যে আছি,’’ তিনি বলছেন।

সেখানে চুরি, ডাকাতি ও ছিনতাই খুব বেড়ে গেছে বলে বাংলাদেশি কমিউনিটির সদস্যরা জানিয়েছেন। সড়কে বের হয়ে সামরিক বাহিনী এবং আধা-সামরিক বাহিনী - উভয় পক্ষই টাকা পয়সা, মোবাইল বা স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে যাচ্ছে। সেখানে পুলিশি ব্যবস্থা বা নিরাপত্তা ব্যবস্থা বলতে আর কিছুই নেই বলে বাংলাদেশিরা জানিয়েছেন। 

সুদানে সব মিলিয়ে ১৫০০ থেকে ১৮০০ বাংলাদেশি রয়েছে বলে জানা গেছে। এদের বেশিরভাগই চাকরি এবং ব্যবসা-বাণিজ্য করে।সুদানে মানবিক সঙ্কট তৈরি হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

বাংলাদেশি কমিউনিটি সুদানের সভাপতি সুলতান দানেশ আলী বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, হঠাৎ করে যুদ্ধ বেধে যাওয়ায় আমাদের কাছে কোন অর্থ নেই।

তিনি বলছেন, যুদ্ধের কারণে ব্যাংক বন্ধ হয়ে গেছে, ফলে তাদের হাতেও টাকাপয়সা নেই।

"ঈদের আগে অনেকে দেশে টাকা পাঠিয়ে দিয়েছে। ব্যাংক বন্ধ থাকায় কেউ টাকাও তুলতে পারছে না। ফলে নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে থাকলেও আর্থিক সংকটে অনেক বাংলাদেশি পরিবার শহর ছাড়ার ব্যবস্থা করতে পারছে না।"

তিনি বলেন, খার্তুমের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সহিংসতা চলতে থাকায় কীভাবে বাংলাদেশিরা শহর ছেড়ে অন্য কোথাও যাবেন, সেটাও তারা বুঝতে পারছেন না।

সুলতান দানেশ আলী বলছেন, দুই পক্ষের মধ্যে যে ৭২ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতি হয়েছে, সেটা শেষ হবে বুধবার স্থানীয় সময় বিকাল পাঁচটায় (বাংলাদেশের সময় রাত নয়টা)। কেউ শহর ছাড়তে চাইলে এই সময়ের মধ্যেই ছাড়তে হবে।

বিবিসি বাংলার সঙ্গে যখন তিনি কথা বলছিলেন, সেই সময় আরও কয়েকটি পরিবারের সঙ্গে তিনিও শহর ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

তিনি জানান, আরও অনেক বাংলাদেশি ও অন্যান্য দেশের নাগরিকরা এই সময়ের মধ্যে খার্তুম ছেড়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। তার নিজের এবং আরও অনেক পরিবারের সঙ্গে শিশু সন্তানও রয়েছে।

তারা আপাতত সুদান ছাড়তে না পারলেও খার্তুম ছেড়ে নিরাপদ কোন স্থানে চলে যেতে চান।

বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে নিতে কি করা হচ্ছে

সুদানের খার্তুমে বাংলাদেশ দূতাবাস এবং রাষ্ট্রদূতের বাসভবন হামলার শিকার হলে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত এবং দূতাবাসের কর্মকর্তারা সুদান ছেড়ে সীমান্তবর্তী মাদানি শহরে চলে গেছেন। ফলে এই মুহূর্তে কার্যত খার্তুমের দূতাবাসে কেউ নেই।

গত ২২শে এপ্রিল বাংলাদেশ দূতাবাসের জানালা ও দেয়াল ভেদ করে গুলি ঢোকে।

বাংলাদেশি কমিউনিটির সদস্যদের মাধ্যমে সেখানে থাকা বাংলাদেশিদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে দূতাবাস।

যারা বাংলাদেশে চলে যেতে চান, তাদের জন্য একটি ফর্ম দেয়া হয়েছে। সেটা বিতরণ ও সংগ্রহ করে দূতাবাসের কর্মীদের কাছে পাঠাচ্ছে স্থানীয় কমিউনিটির সদস্যরা।

এর মধ্যেই সাড়ে পাঁচশোর মতো বাংলাদেশি এই ফর্ম পূরণ করে বাংলাদেশে ফিরে যাওয়ার আগ্রহের কথা জানিয়েছেন।সুদানে যুদ্ধ শুরু হওয়ায় অনেক বাংলাদেশি ঘরের মধ্যে আটকে পড়ে রয়েছেন

তবে তারা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, মালয়েশিয়াসহ অন্য অনেক দেশের নাগরিকদের এর মধ্যেই সরিয়ে নেয়া হলেও বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের সেরকম উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। বাংলাদেশি নাগরিকদের সরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া আরও দ্রুত করার জন্য তারা দাবি জানিয়েছেন।

বাংলাদেশি কমিউনিটি সুদানের সভাপতি সুলতান দানেশ আলী বলছেন, ‘’অন্যসব দেশের যে নাগরিকরা আমাদের এখানে ছিল, ১৮ ও ১৯ তারিখে তাদের বেশিরভাগই নিজেদের দেশে চলে গেছে। কিন্তু এখনো আমাদের বাংলাদেশি কমিউনিটির একজন লোকও দেশে যেতে পারেনি। ‘’

বাংলাদেশি কমিউনিটির সদস্যরা অভিযোগ করছেন, নাগরিকদের সরিয়ে নিতে অন্যসব দেশের তুলনায় গতি অনেক কম।

সুলতান দানেশ আলী বলছেন, “ইন্ডিয়া, মালয়েশিয়ার দূতাবাস আরও পাঁচ সাতদিন আগে তাদের নাগরিকদের দেশে নিয়ে গেছে। কিন্তু আমাদের এখনো খার্তুম থেকে সরিয়ে নিতেই নাকি আর কয়েকদিন লাগবে। এতে তো আমাদের অনেকের বড় ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। “

তবে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আফ্রিকা ডেস্কের মহাপরিচালক মোঃ তারিকুল ইসলাম বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, ‘’আমাদের দূতাবাসের কর্মকর্তারা এ নিয়ে কাজ করছে। সুদান থেকে যে বাংলাদেশিরা দেশে ফিরে আসতে চান, তাদের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ রাখছি। পরিস্থিতি নিরাপদ হলেই আমরা তাদের সরিয়ে আনার কাজ শুরু করবো। দূতাবাস বিভিন্ন অপশন পর্যালোচনা করছে। যেটা নিরাপদ হবে, সেই রুট দিয়ে বাংলাদেশিদের সরিয়ে আনা হবে।‘’

মঙ্গলবার রাত পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ফেসবুকে একটি পোস্টে লিখেছেন, ‘’সুদানে অবস্থানরত বাংলাদেশি নাগরিকদের নিরাপদে অন্য দেশের মাধ্যমে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনার কার্যক্রম শুরুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। খার্তুমে বাংলাদেশ দূতাবাস ইতিমধ্যে এই বার্তা সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের মধ্যে প্রচার শুরু করেছে।‘’

‘’আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উপরে নির্ভর করবে, কিভাবে কোন পদ্ধতিতে তারা যাত্রা করবেন। সবাইকে দূতাবাসের নির্দেশনা মেনে রেজিস্ট্রেশন এবং প্রয়োজনীয় কাজ করার অনুরোধ করছি,‘’ তিনি লিখেছেন।যুক্তরাজ্যের মতো অনেক দেশ এর মধ্যেই তাদের নাগরিকদের সরিয়ে নিয়েছে

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আরেকজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সুদান থেকে বাংলাদেশিদের জাহাজে করে সৌদি আরব নিয়ে গিয়ে সেখান থেকে বাংলাদেশে আনার কথা ভাবা হচ্ছে।

খার্তুমের পরিস্থিতি কিছুটা নিরাপদ হলেই বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনার জন্য বাস পাঠানো হবে। সেই বাসে করে তাদের বন্দর নগরী পোর্ট অব সুদানে আনা হবে। এরপর সেখানে থেকে জাহাজে করে সৌদি আরবে নিয়ে আসার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। সৌদি আরব থেকে তারা বাংলাদেশে ফিরে যেতে পারবেন।

সুদানের দূতাবাস থেকে সেখানকার বাংলাদেশি কমিউনিটির সদস্যদের জানানো হয়েছে, এই মাসের ৩০ তারিখে বাস পাঠানো হতে পারে। সেই অনুযায়ী তাদের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। যদিও কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পরিস্থিতি উন্নতি না হলে এটা মে মাসেও গড়াতে পারে।

কিন্তু দিন দিন খার্তুমের পরিস্থিতির অবনতি হতে থাকায় বাংলাদেশি অনেক পরিবার ততদিন অপেক্ষা না করেই নিজেদের মতো করে শহর ছেড়ে নিরাপদ স্থানে চলে যাওয়ার চেষ্টা করছেন।

সূত্র: বিবিসি

ঢাকানিউজ২৪.কম / 11

আরো পড়ুন

banner image
banner image