• ঢাকা
  • শনিবার, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ১৩ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

ঠাকুরগাঁওয়ে ঘন কুয়াশায় চরম দূর্ভোগে নিম্ন আয়ের মানুষ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০৩ জানুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:৫০ পিএম
ঠাকুরগাঁওয়ে ঘন কুয়াশায় 
চরম দূর্ভোগে নিম্ন আয়ের মানুষ

গৌতম চন্দ্র বর্মন, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : হিমালয় কন্যা নামে পরিচিত দেশের উত্তরের জেলা দুটির মধ্যে ঠাকুরগাঁও অন্যতম। হিমালয়ের কাছাকাছি অবস্থিত হওয়ায় প্রতিবছর এখানে শীতের প্রকোপ বেশি হয়ে থাকে। এবারেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। 

গত কয়েক সপ্তাহ থেকে জেলায় শুরু হয়েছে প্রচন্ড কুয়াশা ও হিমেল হাওয়া। দুপুরে কিছুটা সূর্যের দেখা মিললেও তাপমাত্রা থাকে কম। বিকেল থেকেই শুরু হয় হিমেল হাওয়া ও কুয়াশা পড়া। রাত বাড়ার সাথে সাথে বৃষ্টির মতো ঝিরঝির করে পড়তে থাকে কুয়াশার ফোঁট ফোঁটা বিন্দু। আর এমন কনকনে ঠান্ডায় কাজ করতে না পারায় চরম বিপাকে ও দূর্ভোগে পড়েছে জেলার খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষ। অপরদিকে ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাড়ছে ছোট শিশু এবং বয়স্ক রোগির সংখ্যা।

তীব্র কুয়াশার কারণে ভোরে ও বিকেল বিকেলেই জেলার বিভিন্ন সড়কে যানবাহন চলাচল করছে বাতি জ্বালিয়ে ।

তেঁতুলিয়া থেকে পাথর বোঝাই ট্রাক নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে আসা ময়নুল ইসলাম জানান,‘তেঁতুলিয়া থেকে লোড ট্রাকটি নিয়ে ঠাকুরগাঁও এসেছি খুব কষ্ট করে। রাস্তায় এতো কুয়াশা যে হেডলাইটের আলোয় দুই হাত দূরে ভালো করে কিছুই দেখা যাচ্ছে না। এতে রাস্তায় দূর্ঘটনা ঘটার শঙ্কা খুব বেড়ে গেছে। আগে আমরা লোড ট্রাকের গতি রাখতাম ৬০-৭০ কি.মি. আর এখন আমরা তা ২০ কি.মি. পার করতে পারিনা ’

শীতের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা আগুন জ্বালিয়ে শীত থেকে রক্ষা পাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। শীতবস্ত্রের দামও বেড়ে গেছে। তবে বিভিন্ন বেসরকারি সংগঠন, ব্যবসায়ী, দানশীল ব্যক্তি কম্বল, শীতবস্ত্র বিতরণ করছে প্রতিদিন।

এই শীতে প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বেড় হচ্ছেন না মানুষ। শীতের কারণে মাঠ ঘাটে ঠিকভাবে কাজ কর্মও করতে পারছেন না অনেকে। এমন অবস্থায় শ্রমজীবী, দরিদ্র ও ছিন্নমূল মানুষরা পড়েছেন চরম বিপাকে। কিছু কিছু মানুষ উপায়ন্তর না পেয়ে দরিদ্রতার কষাঘাতে বৃদ্ধ বয়সেও এই শীতে মাঠে ঘাটে কাজ করছেন পেটের দায়ে।

ঠাকুরগাঁওয়ে  আবহাওয়া অধিদফতর না থাকায় জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের কর্মকর্তারা জানায়, গত বছরের তুলনায় এ বছর শীতের তীব্রতা একটু বেশি অনুভূত হচ্ছে। শীতের বর্তমান অবস্থা আরো কয়েকদিন বিরাজ করতে পারে। এ মাসের শেষে কয়েকটি শৈত্য প্রবাহ হতে পারে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, গতকাল মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারি) পর্যন্ত জেলায় সর্বোাচ্চ ২২ ডিগ্রি ও সর্বনিম্ন ৯ ডিগ্রি তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

এদিকে শীত জেঁকে বসায় ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ঠান্ডাজনিত রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। প্রতিদিন ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আসছে শিশু এবং বয়স্ক রোগীরা। বর্তমানে ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে অনেক শিশু চিকিৎসাধীন রয়েছে। প্রতিদিন তাদের সংখ্যাও কিছুটা বাড়ছে বলে জানা গেছে। প্রতিদিন এই হাসপাতালের বহির্বিভাগে ঠান্ডাজনিত রোগে গড়ে প্রায় ৩০০ শিশু চিকিৎসা নিচ্ছে। যা সাধারণ সময়ের চেয়ে অনেক বেশি।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image