• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ক্রেনচালকসহ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে মামলা


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৬ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৯:৪৭ এএম
ক্রেনচালকসহ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মামলা
ফ্লাইওভারের গার্ডার ছিটকে প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে

নিউজ ডেস্ক : উত্তরায় বাস র‍্যাপিড ট্রানজিট প্রকল্পে নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের বক্স গার্ডার ছিটকে প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে পাঁচজন নিহতের ঘটনায় মামলা করা হয়েছে। 

উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মোহসিন বলেন, ‘উত্তরায় ক্রেন দুর্ঘটনায় নিহত দুই বোনের ভাই বাদি হয়ে মামলা করেছেন। মামলায় তিনি অবহেলাজনিতভাবে ক্রেন পরিচালনাকারী চালক, সিজিজিসি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে দায়িত্বপ্রাপ্ত অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন।

ক্রেনের চালকসহ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিজিজিসির বিরুদ্ধে অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগে এ মামলা হয়েছে।

সোমবার রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করেন দুর্ঘটনায় নিহত ফাহিমা আক্তার ও ঝর্না আক্তারের ভাই আফরান মন্ডল বাবু।

মামলায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদেরও আসামি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মোহসিন।

তিনি বলেন, উত্তরায় ক্রেন দুর্ঘটনায় নিহত দুই বোনের ভাই বাদি হয়ে মামলা করেছেন। মামলায় তিনি অবহেলাজনিতভাবে ক্রেন পরিচালনাকারী চালক, সিজিজিসি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে দায়িত্বপ্রাপ্ত অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন।

সোমবার বিকেল ৪টার দিকে উত্তরায় বিআরটি প্রকল্পের নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের ভায়াডাক্টের অংশ প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে পাঁচজন নিহত হয়। ওই দুর্ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ এসেছে নিউজবাংলার কাছে। সেখানে দুর্ঘটনা সময়ের দৃশ্য দেখা গেছে।

ভিডিওতে দেখা গেছে, রাস্তা দিয়ে চলছে বিভিন্ন ধরনের যানবাহন। এর মধ্যেই ক্রেনে করে একটি পরিবহন গাড়ি থেকে নামানো হচ্ছে ফ্লাইওভারের বক্স গার্ডার।

সে গাড়িতে রয়েছে অনেক বক্স গার্ডার। যার মধ্যে একটি গার্ডার কোনো নিরাপত্তা বেষ্টনী ছাড়াই ক্রেন দিয়ে ওপরে ওঠানো হচ্ছিল।

দুর্ঘটনার একটু আগে যে যানবাহনগুলো দুর্ঘটনাকবলিত স্থানের সামনে দিয়ে যাচ্ছিল তার মধ্যে একটি ছিল অনাবিল পরিবহনের বাস। ঠিক তার ডান পাশে একটু সামনে ছিল রেড ওয়াইন রঙের প্রাইভেট কারটি। যখন গার্ডারের নিচে ওই প্রাইভেট কারটি চাপা পড়ে যখন অনাবিল পরিবহনের ওই বাসটি দ্রুত ব্রেক করে থেমে যায়।

ওই বাসের সঙ্গে সঙ্গে তার পেছনে অন্য যানবাহনগুলোও থেমে যায়।

ভিডিওতে দেখা যায়, আক্রান্ত ওই প্রাইভেট কারের সামনে ছিল একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা। সেটি সামনে চলে যায়।

গাড়িটির ওপর যখন বক্স গার্ডারটি তোলা হচ্ছিল ঠিক তখন ক্রেনটি ছিল বিপরীত দিকের রাস্তায়, অর্থাৎ গাজীপুর-ঢাকা রোডে। দুই পাশেই যানবাহন চলছিল স্বাভাবিক গতিতে। গার্ডার পরিবহনের গাড়ি কিংবা ক্রেনের পাশে তৈরি করা ছিল না কোনো বেষ্টনী।

যখন ক্রেনটিতে গার্ডারটি তোলা হয়, তখন কিছুক্ষণ ঝুলছিল সেটি। তার একটু সময়ের মধ্যেই ক্রেনটি কাত হয়ে নিচে পড়ে যায় গার্ডার, আর সেটি পড়ে সেই গাড়িটির ওপর।

গার্ডার পড়ার শব্দে আশপাশের লোকজন ছুটে যেতে থাকে দুর্ঘটনাস্থলে। আর আশপাশে থাকা সব গাড়ি যে যেভাবে পেরেছে ঘটনাস্থল থেকে দূরে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

দুর্ঘটনায় একজন প্রত্যক্ষদর্শী নাম প্রকাশ না করার শর্তে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার গাড়ি ওই গাড়িটার (দুর্ঘটনায় পড়া) দুই গাড়ি পেছনে ছিল। আমি দেখলাম ক্রেনটা গার্ডার তোলার চেষ্টা করতেছে। তখন শেক করছিল, দেখেই মনে হচ্ছিল ক্রেনটা শক্তিশালী না, কারণ গার্ডার একটু তোলার পরই দুলছিল। একজন শ্রমিক দড়ি টেনে গার্ডারটা ব্যালেন্স করার চেষ্টা করছিল। কয়েক মুহূর্তের মধ্যেই ওই গাড়িটা গার্ডারের নিচ দিয়ে চাচ্ছিল, আর গার্ডারটা এর ওপর পড়ল।’

এরপর উদ্ধার শুরু করে পুলিশ। কিছু পরে সেখানে যোগ দেন ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। পরে গাড়ি থেকে পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। জীবিত উদ্ধার করা হয় দুজনকে। তারা হলেন ২৬ বছর বয়সী হৃদয় ও ২১ বছর বয়সী রিয়ামনি, যাদের বিয়ে হয়েছে গত শনিবার। আজ ছিল বউভাত।

ছেলের বাড়ি রাজধানীর কাওলায়। বউভাত শেষে মেয়ের বাড়ি আশুলিয়ায় নিয়ে যাচ্ছিল। ছেলের বাবা রুবেল গাড়িটি চালাচ্ছিলেন।

রুবেল ছাড়াও যারা মারা গেছেন তারা হলেন কনের মা ফাহিমা বেগম, তার বোন ঝর্ণা বেগম, ৬ বছর বয়সী জান্নাত ও দুই বছর বয়সী জাকারিয়া।

নিহতদের আত্মীয় পরিচয় দিয়ে জাহিদ হাসান শুভ নামের একজন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার ভগ্নিপতির মেয়ের বিয়ে হয় গত শনিবার। তাদের ভগ্নিপতির বাড়ি কাওলায়। আজকে বৌভাত গেছে। আমরা মেয়ে-জামাইসহ বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছিলাম।

‘ছেলের বাবা ড্রাইভ করছিলেন। ভাগনি আর জামাই জানলার সাইডে ছিল। ওদের বের করা হয়েছে। ভেতরে আমার বোন ভাগনিসহ ৫ জন ছিল। সবাই স্পটে ডেড হইছে।’

ক্রেনের চালক পালিয়ে গেছেন বলে জানিয়েছেন উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি। এই ঘটনায় ঠিকাদারি কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে এলেও সব কিছু এখনও জানা যায়নি বলে জানিয়েছেন তিনি।

এমন একটি প্রকল্পের কাজে নিরাপত্তা বেষ্টনী না থাকায় শঙ্কা প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় বা বুয়েটের অ্যাকসিডেন্ট রিসার্চ সেন্টারের গবেষক অধ্যাপক হাদিউজ্জামান।

তিনি বলেন, ‘এটা একটা ফাস্ট ট্র্যাক প্রজেক্ট, দিন-রাত ২৪ ঘণ্টাতেই কাজ চলবে, সেটি সমস্যা না। সেখানে দিনে হোক আর রাতে হোক যখন ভারী উপকরণ বা সরঞ্জাম আপনি বহন করবেন, সেটা ক্রেনের মাধ্যমে হোক আর যেকোনো মাধ্যমে হোক না কেন, ইন্টারন্যাশনাল প্র্যাকটিসটা হচ্ছে অবশ্যই একটা নিরাপত্তা-বেষ্টনী তৈরি করতে হবে আগে।

‘কারণ ক্রেন থেকে গার্ডার কিন্তু দুর্ঘটনাক্রমে পড়ে যেতেই পারে, সে কারণেই আপনাকে পূর্ব সতর্কতা নিতে হয়। ইন্টারন্যাশনাল প্র্যাকটিস হচ্ছে আমাকে সেই জায়গাতে আগেই কর্ডন বা নিরাপত্তা-বেষ্টনী তৈরি করতে হবে। ওই বেষ্টনীর মধ্যে যেন পথচারী বা কোনো যানবাহন ঢুকতে না পারে, সেটি নিশ্চিত করার দায়িত্বও কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের।’

তবে এমন দুর্ঘটনা ঘটলেও কেউই এর কোনো দায় নিতে চায়নি। বিআরটি প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন। তবে তার বক্তব্য জানতে পারেনি নিউজবাংলা। বারবার কল করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

দায় নিতে চাননি পরিবহন সচিব আমানউল্লাহ নূরীও। তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে বলেন, ‘আমরা তদন্ত করছি। ওপর লেভেল থেকেই এটা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে পরে আপনাদের জানাব। যারা দায়ী তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

দুর্ঘটনা বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image