• ঢাকা
  • সোমবার, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৫ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

রায়পুরায় মসলার মিলের বায়ুদূষনে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী, বন্ধের দাবী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০২:২৩ পিএম
রায়পুরায় মসলার মিলের বায়ুদূষনে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী, বন্ধের দাবী
মসলার মিল

মো: তৌফিকুল হক, রায়পুরা (নরসিংদী) প্রতিনিধি: নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলায় ‘ইব্রাহিম মসলা মিল’ নামে একটি মসলার কারখানার বিরুদ্ধে বায়ুদূষন সহ নানান অভিযোগ তুলেছে স্থানীয় এলাকাবাসী। মিলটি উপজেলার শ্রীরামপুর রেইলইেট এলাকায় অবস্থিত। ২০২২ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর রায়পুরা পৌরসভা থেকে ‘মসলা ও সাটার ক্রয় বিক্রয়ের’ নামে একটি ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে মিলটি পরিচালনা করে আসছেন এর পরিচলাক মো: ইব্রাহিম মিয়া। প্রায় ২০ বছর যাবত মিলটি আবাসিক এলাকায় চালু হওয়ায় স্থানীয় বাসিন্দারা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন। মিলটি এখন বন্ধ করার জোর দাবী স্থানীয়দের। 

স্থানীয় তোষক ব্যবসায়ী জুয়েল মিয়ার অভিযোগ, মিলটি দিনের অধিকাংশ সময় যাবত চালু থাকে। একসাথে যেমন পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে সেই সাথে সৃষ্টি হচ্ছে বায়ুদূষনের মতো এক ব্যাধি। মিল চালু থাকার ফলে মসলার গন্ধে এলাকায় থাকা দুষ্কর ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে। 

স্থানীয় বাসিন্দা জুয়েল মিয়া বলেন, এখানে মিল চালু করার ফলে বায়ু দূষনের কারনে তার বাবা সিরাজ মিয়া ও তার খালু কদর আলী শ^াসকষ্ট জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করেছেন। তাই অত্র এলাকা থেকে মিলটি বন্ধ করার দাবী জানান তিনি। সোহেল মিয়া নামে আরেক ব্যাক্তি জানায়, মিলের বায়ুদূষনের কারনে ১০বছর আগে মারা যান তার বাবা। 

এসব অভিযোগের ব্যাপারে প্রতিবেদকের সাথে কথা বলতে নারাজ মিল কর্তৃপক্ষ ও পরিচালক ইব্রাহিম মিয়া। গত মাসে স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে তদন্তে আসেন নরসিংদী জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আবুল মন্সুর মোল্লা। তিনি বলেন, মসলা মিলের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপপরিচালক বরাবর একটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করার কথা বলা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ^াস প্রদান করেন তিনি। 

শ্রীরামপুর রেলগেইট বাজার কমিটির সভাপতি  ও রায়পুরা পৌর আ.লীগ সভাপতি মাহাবুবুল আলম শাহীন সাংবাদিকদের বলেন, মসলার মিলটি বন্ধ করা না হলে এ বাজারে আর কেও ব্যবসা করবে না। মিলের কারনে ব্যবসায়ীরা বাজার ছেড়ে দিতে চাচ্ছে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image