• ঢাকা
  • সোমবার, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৭ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

যুক্তরাষ্ট্রে আবারও শুরু হয়েছে গণতন্ত্র সম্মেলন 


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ২৯ মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১০:৩৭ এএম
যুক্তরাষ্ট্রে আবারও শুরু হয়েছে গণতন্ত্র সম্মেলন 
বাইডেন

নিউজ ডেস্ক : আবারও গণতন্ত্র সম্মেলনের আয়োজন করেছে যুক্তরাষ্ট্র। হোয়াইট হাউসে দ্বিতীয়বারের মতো বুধবার (২৯ মার্চ) শুরু হয়েছে দুদিনের এ ‘সামিট ফর ডেমোক্রেসি-২০২৩’। চলবে বৃহস্পতিবার অবধি।

যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও এ সম্মেলনের সহ-আয়োজক কোস্টারিকা, নেদারল্যান্ডস, জাম্বিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়া। সম্মেলনের প্রথম পর্ব হবে ভার্চুয়ালি। নিজ নিজ দেশ থেকেই বিশ্বনেতারা আলোচনায় বসবেন। 

দ্বিতীয় পর্বে যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য সহ-আয়োজক দেশের সশরীর ও ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণের মাধ্যমে আলোচনা অব্যাহত থাকবে। বিশ্বনেতারা ছাড়া সুশীল সমাজ ও ব্যক্তি খাতের প্রতিনিধিরাও এতে অংশ নেবেন। এদিকে এ সম্মেলন নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। বিশ্বের রাজনীতি সচেতন বহু মানুষেরই প্রশ্ন, যেখানে যুক্তরাষ্ট্রেই গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের অভাব, নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি এবং প্রতিনিয়ত চরম মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে, সেখানে ঘটা করে এমন সম্মেলন করার যৌক্তিকতা কতটুকু? 

সম্মেলনে কোনো দেশকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে; আবার কোনো দেশকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। ফলে এমন প্রশ্নও উঠছে, আমেরিকার এ গণতন্ত্র সম্মেলনই বা কতটুকু গণতান্ত্রিক?   

২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে নির্বাচনী প্রচারে বাইডেন যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তার একটি গণতন্ত্র সম্মেলন। তিনি বলেছিলেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে প্রথম বছরেই গণতন্ত্র সম্মেলনের আয়োজন করবেন তিনি।  

সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতেই ২০২১ সালে প্রথম সম্মেলন আয়োজন করেন বাইডেন। সেবার ওই বিশ্বের ১১২টি দেশকে সম্মেলনে যোগ দিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়। ভার্চুয়াল সম্মেলনে অংশ নিয়েছিলেন প্রায় সাড়ে ৭শ প্রতিনিধি। 

চলতি বছর দ্বিতীয়বারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে এ সম্মেলনের। এবার এতে নতুন আটটিসহ ১২০টি দেশ আমন্ত্রণ পেয়েছে। বলা হচ্ছে, বিশ্বের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সুরক্ষা ও কর্তৃত্ববাদী শাসন প্রতিহত করা, দুর্নীতি দমন ও মানবাধিকার সমুন্নত রাখা  এ সম্মেলনের প্রধান লক্ষ্য।  

১০৭তম অবস্থানে থেকেও বাইডেনের ডেমোক্রেসি সামিটে আমন্ত্রণ পেয়েছে পাকিস্তান। কিন্তু বাংলাদেশ ৭৩তম স্থানে থেকেও কেন আমন্ত্রণ পায় না এমন প্রশ্ন উঠছে? বিশ্লেষকরা বলছেন, এর কারণ ডেমোক্রেসি বা গণতন্ত্র এখন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে কর্তৃত্ববাদের নতুন হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে। বিশ্বময় তারা এখন গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের প্রশ্নে একেক অঞ্চলে একেক রকম নীতি অবলম্বন করছে। 
 
বিশ্বে মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের বিষয়ে আমেরিকার দাদাগিরি দেখলে মনে হবে মানবাধিকার বা গণতন্ত্রের ঠিকাদারি একমাত্র মার্কিন মুল্লুকের। তা নাহলে কেন পাকিস্তানের মতো কার্যত একটি একনায়ক ও মিলিটিরি রাষ্ট্রকে তারা গণতান্ত্রিক সম্মেলনে আহ্বান জানায়। যেখানে ৭৫ বছরের পাকিস্তানে ৩৪ বছর কেটেছে সেনাশাসনের অধীনে এবং এখনও যেখানে পেছন থেকে রাষ্ট্রের সব ক্ষমতার কলকাঠি নাড়ে সেনাবাহিনী।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image