• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২০ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

মিঠামইন ও নিকলীর, হাওরে পর্যটকদের ভিড়


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০৮ আগষ্ট, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৩:০৫ পিএম
মিঠামইন ও নিকলীর
হাওরে পর্যটকদের ভিড়

বিজয় কর রতন, মিঠামইন (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ- কিশোরগঞ্জের মিঠামইন ও নিকলী উপজেলায় অলওয়েদার সড়ক ও বেরিবাঁধ এলাকায় বর্ষার ভরা মৌসুমে হাওরের থৈ থৈ পানিতে আনন্দ উপভোগ করতে দূরদূরান্ত থেকে ভীড় জমাচ্ছেন পর্যটকরা। তবে অতিরিক্ত নৌকা ভাড়া হওয়ায় অনেক পর্যটকরা পুরোপুরি আনন্দ উপভোগ করতে পারছে না। তবে উপজেলা প্রশাসন বলছে, হাওরে পর্যটকদের ভ্রমনের জন্য সব ধরণের আগাম প্রস্ততি আমরা নিয়েছি।

জেলার হাওর গুলোতে এবার পানি দেরীতে আসায় শ্রাবণের শেষের দিকে ভ্রমণপিপাসুরা আসতে শুরু করেছে। সপ্তাহে শুক্র ও শনিবার ছুটির দিন ছাড়াও পর্যটকদের ভীড় বেশি দেখা যায়। তবে নৌকার ভাড়া বেশি হওয়ায় অনেকে আবার হাওরের মাঝে না গিয়েও পার থেকে আনন্দ উপভোগ করছেন। একদিকে হাওরের থৈথৈ পানি আর অন্যদিকে নির্মল বাতাস যেন পর্যটকদের আনন্দ আরো বেড়ে যায়। পর্যটকদের আনন্দ উল্লাস বাড়িয়ে দিতে রয়েছে সব ধরণের সুযোগ-সুবিধা। মিঠামইনে রয়েছে ২টি অত্যাধুনিক রিসোর্ট। হাওরের মাঝখানে প্রেসিডেন্ট রিসোর্ট ও সাবেক রাষ্ট্রপতির বাড়ীর পাশে রয়েছে হাওড় রিসোর্ট। এখানে হোটেল, রেস্তোরায় মিলছে রুচিসম্মত সব ধরণের খাবার।

এ ছাড়া রয়েছে মাটির বানানো হাতি, ঘোড়া, মুরগীসহ সব ধরণের খেলনা সামগ্রী। রাস্তার পাশে অস্থায়ী মুড়ি, ফুচকা, বুট, বাদাম, চটপটির দোকান। যা স্থানীয় অনেকের বেকারত্ব দূর করেছে। যাতায়াতের জন্য রয়েছে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ বিভিন্ন যানবাহন। এতে একদিকে যেমন দূরদূরান্ত থেকে পর্যটকরা আনন্দ উপভোগ করতে পারছে অন্যদিকে বেকার যুবকদের মিলছে কর্মসংস্থান। এখানকার স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন শত শত মানুষ বেড়িবাঁধ ও অলঅয়েদার সড়কের  সৌন্দর্য দেখতে আসছে।

বর্ষার ভরা মৌসুমে বিস্ত্রীর্ণ হাওরের জলরাশির ঢেউ আছড়ে পড়ে সড়ক ও বেড়িবাঁধে। স্থানীয় তরুনরা আগত দর্শনার্থীদের আনন্দ দিতে প্রবাহমান ঢেউয়ে নানা শারীরিক কৌশল দেখান। নরসিংদী থেকে ঘুরতে আসা মো. সায়েম নামের এক পর্যটক বলেন, ‘একাধিকবার কুয়াকাটা, কক্সবাজার গিয়েছি। আনন্দ একই রকম। বেড়িবাঁধের সৌন্দর্য সেখানকার মতোই। তা ছাড়া খরচ খুবই কম। এক দিনে সবকিছু উপভোগ করে চলে আসা যায়। পরিবারসহ কম খরচে আনন্দ উপভোগ করা যায়, যা দেশের অনেক পর্যটনকেন্দ্রে সম্ভব নয়।’ কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা, মিঠামইন ও অষ্ট্রগাম)আসনের এমপি রেজওয়ান আহমেদ তৌফিক বলেন, ‘ঢাকা, বৃহত্তর ময়মনসিংহ, নরসিংদী, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ সারা দেশ থেকে লোকজন প্রতিনিয়ত এখানে আসে।

মিঠামইনের অলওয়েদার সড়ক ও নিকলীর বেড়িবাঁধকে কেন্দ্র করে এখানে পর্যটন শিল্পের বিকাশ হয়েছে। এলাকার শত শত মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে।’ আমরা চেষ্টা করব সবসময় পর্যটকদের সবধরণের সুযোগ-সুবিধা দিতে। মিঠামইন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)আব্দুল্লাহ আল-মামুনও নিকলী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা শাকিলা পারভীন বলেন, ‘নিকলী ও মিঠামইনের হাওরের বুকছিড়ে অলওয়েদার সড়ক ও বেড়িবাঁধকে কেন্দ্র করে বিশাল কর্মযজ্ঞের সৃষ্টি হয়েছে। এখানে গড়ে উঠেছে খাবার থেকে শুরু করে বিভিন্ন পণ্যের দোকান। থাকার জন্য গেস্ট হাউস, হোটেল রয়েছে। কয়েক বছরের মধ্যে অনেকের কর্মসংস্থানের সুযোগ হয়েছে।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে হাওরের পানিতে না নামার নির্দেশনা রয়েছে। ভালো সাঁতারু ছাড়া হাওরের পানির তোড়ে অনেকেই ভেসে যায়। তাই সাবধানতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। এখানে পর্যটকদের কাছ থেকে কেউ যদি অতিরিক্ত টাকা আদায় করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image