• ঢাকা
  • বুধবার, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২১ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

অষ্টগ্রামে ঘোড়াউত্রা নদীতে হাওরবাসীর স্বপ্নের ফেরি উদ্বোধন 


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৫৬ এএম
অষ্টগ্রামে ঘোড়াউত্রা নদীতে
হাওরবাসীর স্বপ্নের ফেরি উদ্বোধন 

মিঠামইন ( কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি: দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর আবারো কিশোরগঞ্জের অষ্ট্রগ্রামে ও বাজিতপুরের ঘোড়াউত্রা নদীতে সড়ক ও জনপথ বিভাগের ফেরি সার্ভিস আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে। 

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) দুপুরে পাটুলী নৌঘাট থেকে হুমাইপুর ঘাট দুই কিলোমিটার নদীপথে ফেরি চলাচল চালু করা হয়। বাজিতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম হুসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জেমস। 

এ সময় অষ্টগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. দিলশাদ জাহান, অষ্টগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান বিপিএম, বাজিতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মনির হোসেন, কিশোরগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. ওসমান মিয়া এবং এলাকার বিভিন্ন শ্রেণিপেশার গণ্যমান্য লোকজন উপস্থিত ছিলেন। 

২০২০ সালে কিশোরগঞ্জের ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম ও হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার সঙ্গে শুকনো মৌসুমে সড়কপথে গাড়ি দিয়ে চলাচলের জন্য ঘোড়াউত্রা নদীতে ফেরি চালু করার সিদ্ধান্ত নেয় সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর। সে অনুযায়ী কাজ করা হলেও ফেরি চলাচল করেনি। চলতি বছরের ২৩ ও ২৪ ফেব্রয়ারী মিঠামইনে প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশ উপলক্ষে দুই দিনের জন্য ফেরি সার্ভিস চালু করা হলেও পরবর্তীতে বন্ধ হয়ে যায়। 

হাওরের প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত বাজিতপুর পাটুলীঘাট দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে। হাওর অঞ্চলের মানুষের সময় ও অর্থ বাঁচাতে ফেরি চলাচল ছিল সময়ের দাবি। বহুল প্রত্যাশিত দাবি বাস্তবায়ন হওয়ায় হাওরবাসী উল্লসিত। 

হুমাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম জানান, ঘোড়াউত্রা নদীতে ফেরি সার্ভিস চালু হবার কারণে হাওরবাসীর অনেক উপকার হয়েছে। বিশেষ করে বাজিতপুরে হুমাইপুর-মাইজচর ইউনিয়ন, অষ্টগ্রাম ও হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার মানুষের। তারা এই ফেরি ব্যবহার করে অনেক কম সময়ে জেলা শহরসহ বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করতে পারবেন। 

অষ্টগ্রামের বাসিন্দা মুহাম্মদ জাকির হোসেন জানিয়েছেন, বাজিতপুরের পাটুলী এলাকায় ফেরি সার্ভিস চালু হবার কারণে অষ্টগ্রামবাসীর যাতায়াত সুবিধা এখন কল্পনাতীত। এখন জেলা শহর বা রাজধানী থেকে ফিরে কেউ পাটুলী ঘাটের ফেরি থেকে নেমে ইঞ্জিনচালিত যানবাহনে ৪০ মিনিটে অষ্টগ্রাম সদরে চলে যেতে পারবে।

তবে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করছেন- এই ফেরি চলাচল নির্বাচনের পর থেমে যায় কি না!
 

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image