• ঢাকা
  • সোমবার, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৫ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

ময়মনসিংহ সিটি নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতিসহ ৩ মেয়র প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত 


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ১১ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:২৪ পিএম
ময়মনসিংহ সিটি নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতিসহ ৩ মেয়র প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত 
ময়মনসিংহ সিটি নির্বাচন

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের গত ৯ মার্চ অনুষ্ঠিত নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বী পাঁচ প্রার্থীর মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ তিন জনেরই জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এ নিয়ে দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারণ নাগরিকদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। এদিকে, নির্বাচনে ১২৮টি কেন্দ্রের সবকটি কেন্দ্রেই পাস করে মো. ইকরামুল হক টিটু মেয়র নির্বাচিত হয়ে রেকর্ড সৃষ্টি করেছে বলে রবিবার বিকেলে রিটার্নিং কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন চৌধুরী এ তথ্য জানিয়েছেন। 

রিটার্নিং কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন বলেন, গত শনিবারের নির্বাচনে যারা প্রদত্ত ভোটের সাড়ে ১২ শতাংশের কম পেয়েছেন তাদেরই জামানত বাজেয়াপ্ত হবে। নগরীতে মোট ভোটার ৩ লাখ ৩৬ হাজার ৪৯৬ জন। ভোট পড়েছে ১ লাখ ৮৯ হাজার ৪৩৯টি। প্রদত্ত ভোটের সাড়ে ১২ শতাংশ হয় ২৩ হাজার ৬৮০টি ভোট। যারা এর চেয়ে কম ভোট পেয়েছেন তাদেরই জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ইকরামুল হক টিটুর প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সাদেকুল হক খান মিল্কী টজু, কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগের সাবেক সদস্য রেজাউল হক ও জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী শহিদুল ইসলাম। নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সদস্য ‘হাতি’ প্রতীকের সাদেকুল হক খান মিল্কী টজু জামানত রক্ষা করতে পারলেও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলমসহ অন্য দুই প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। 

নির্বাচনে ইকরামুল হক টিটু ‘টেবিল ঘড়ি’ প্রতীকে পেয়েছেন ১ লাখ ৩৯ হাজার ৬০৪ ভোট। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সাদেকুল হক খান মিল্কী টজু ‘হাতি’ প্রতীকে পেয়েছেন ৩৫ হাজার ৭৬৩ ভোট। ‘ঘোড়া’ প্রতীকে এহতেসামুল আলম ১০ হাজার ৭৭৩, হরিণ প্রতীকে রেজাউল হক ১ হাজার ৪৮৭ ভোট এবং জাতীয় পার্টির প্রার্থী শহীদুল ইসলাম স্বপন মণ্ডল লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৩২১ ভোট।

ফলাফল ঘোষণার পর প্রদত্ত ভোটের মাত্র ৫ শতাংশ ভোট পেয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলমের জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়া নিয়ে জেলার রাজনৈতিক অঙ্গনে ব্যাপকভাবে আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচনের হলফনামায় তিনি স্বশিক্ষিত ছিলেন বলে উল্লেখ করেছিলেন। এ নিয়ে সরাসরি কেউ কোন মন্তব্য করতে না চাইলেও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নেতাকর্মীরা মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। 

এ ব্যাপারে মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক রিপন বলেন, "দলীয় নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষেত্রে সাধারণ কর্মীদের প্রতিফলন কম হয়। যেটা এই নির্বাচনে সাধারণ জনগণ তাদের মতামতের প্রতিফলন ঘটিয়েছেন। আমরা অনেকে দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত হওয়ার পর সাধারণ নেতাকর্মীদের চাহিদা অনুযায়ী কাজ করি না। কমিটি গঠন, পদ বাণিজ্যসহ নানা অসংগতি কর্মীদের মনের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি করে। আমি মনে করি এই নির্বাচনের এমন ফলাফল সেই ক্ষোভেরই বহিঃপ্রকাশ"। 

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মোট বৈধ ভোটের সংখ্যা ১ লাখ ৮৮ হাজার ৯৪৮টি। বাতিল ভোটের সংখ্যা ৪৯১টি। ভোটের শতকরা হার ছিল ৫৬.৩০ শতাংশ।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image