• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২২ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

ড্রইং রুমের মেলা বদলে দিলো মুনমুনের উদ্যোক্তা জীবন


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৩ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:৫৬ পিএম
ড্রইং রুমের মেলা বদলে দিলো
উদ্যোক্তা মুনমুন

ফারজানা মৃদুলা

“কখনোই কোনো গল্পের মাঝে সিমাবদ্ধ রেখোনা, সর্বদা নিজে চেষ্টা করো এবং নিজের আত্মবিশ্বাসকে দৃঢ় রাখতে শেখ “।
— জালাল উদ্দিন রুমির এই উক্তিটিকে খুব আগলে রেখে মনের ভেতর পথ পাড়ি দিয়ে যাচ্ছে খুব সহজ সরল ভাবে আজকের হার না মানা গল্পের নায়িকা শাহতাজ মুনমুন।
যে বিশ্বাস করে সব সুন্দর জয় করা যায় অকপটে হাসিমুখে।
চট্টগ্রামে খুব লড়াই করে নিজের পরিচয়টা গড়তে হয়েছিলো মুনমুনের।

ফ্যাশন ডিজাইনার কথাটা খুব কম প্রচলিত ছিলো তখন,
পাছে লোকের কটুক্তি যেনো চলার পথে আরো আত্নবিশ্বাসী করেছিলো, কেননা ভালো কিছুর সৃষ্টির পিছে যে মসৃণ থাকেনা চলার পথ সেটা জানতো খুব ভালো করে।

ঋতুরাজ বসন্ত খুব প্রিয় তার তাই নিজের ভেতর বারো মাস বসন্তের ছোঁয়ায় বিভোর রেখে অন্যকে রাঙ্গাতে চায়।

নিজের বাসার ড্রইং রুমে মেলার আয়োজন করে বেশ সাড়া ফেলেছিল মুনমুন সেই ১৯৯৮ সালে । প্রচারেই প্রসার সেই বিশ্বাস নিয়ে ফটোকপি করে লিফেলেট বিতরন করেছিল নিজের হাতেই।

সাহসীকতার পরিচয়টা রাখতে গিয়ে বাড়ীওয়ালার বাসা ছাড়ার নোটিশ কষ্টের হাতছানি দিলোও জীবনসঙ্গী সুপারেনটেন্ড ইন্জিনিয়ার, ডিপিএইচই মোঃ বজলুল হক সাহস আর উৎসাহ সেই মুনমুন কে আজ ২০২৪ এ এসে সফল একজন উদ্দোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। 

বাবা ছিলেন নারায়নগঞ্জ তোলারাম কলেজ ও নারায়নগঞ্জ মহিলা কলেজ (প্রিন্সিপাল) প্রফেসর কাজী শাহাদাত হোসেন এবং মা হাসমাতআরা বেগম গৃহিনী হলেও ছিলেন খুবই সৌখিন এবং অনুপ্রেরণার উৎস।
বাবার মায়ের ৩ কন্যা যেন একেকটি ফুল হয়ে সুবাস ছড়িয়ে যাচ্ছে। 

এবং নারী উদ্দোক্তা নিয়ে তাদের সুবিধা অসুবিধার কথা মাথায় রেখে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে শুরু করেছে নারায়নগঞ্জ নারী উদ্যোক্তা সংগঠন।

কেননা নিজে ভুক্তভোগী ছিলেন এবং খুব চাইতেন চমৎকার একটি পার্ট ফর্ম হোক যেখানে উদ্দোক্তাদের নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

সারা বিশ্বেই হাজারো অসংগতির মধ্যেও পুরুষের পাশাপাশি সমাজ দৃষ্টান্ত সৃষ্টি  পরিবর্তনে ভূমিকা রেখে চলেছেন নারীরা। বাংলাদেশও এর থেকে কোন অংশে পিছিয়ে নেই । দেশ স্বাধীন হওয়ার আগে থেকে এ পর্যন্ত যত আন্দোলন-সংগ্রাম হয়েছে, সবখানেই নারীর সরব নেতৃত্ব রয়েছে। যদিও তাদের নেতৃত্বের পথটি কোনোকালেই সুগম ছিল না জানি আমরা, তবু তারা কোনো আন্দোলন-সংগ্রামে পিছিয়ে থাকেননি। লাল সবুজ পতাকার এই দেশ আজ নারী নেতৃত্বের রোল মডেল।

আসলে নেতৃত্ব কি একা এগিয়ে চলা বা সদস্য দের জিম্মি অথবা নিজের অধীনে রেখে নিয়ন্ত্রন করা? এই কথাগুলোকে ভুল প্রমানিত করতে মুনমুন এর এই যাত্রা যেন নতুন মাত্রা যোগ করলো নারায়ণগঞ্জে। 

শক্তিশালী  নেতারা একটি খোলা মন রেখে এগিয়ে চললে আমাদের চারিপাশে হয়ে উঠবে ভালো কিছুর সৃষ্টি।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image