• ঢাকা
  • রবিবার, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২৫ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

গরু দিয়ে হালচাষ এখন বিলুপ্তির পথে


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ০৫ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৯:০৪ এএম
গরু দিয়ে হালচাষ এখন বিলুপ্তির পথে

বরিশাল প্রতিনিধি : বাংলার ইতিহাস ঐতিহ্য সম্বলিত গরু দিয়া লাঙ্গল জোয়ালের মাধ্যমে হালচাষ এখন শুধুই ইতিহাসের পাতার স্মৃতি হয়ে উঠেছে। কালে ভদ্রে কোথাও এ ধরনের হালচাষ চোখে পড়ে না।

এক সময় গ্রাম বাংলার চিরাচরিত ঐতিহ্যের মধ্যে গরু দিয়া জমি চাষ করা ছিল এক ধরনের গৌরব। কার বাড়ি থেকে কয়টা হাল মাঠে নামত সেটাও এক ধরনের প্রভাব বহন করত।

এমন একটা সময় ছিল যখন কৃষকেরা কাকডাকা ভোরে কাধে লাঙ্গল জোয়াল ও গরু নিয়া জমিচাষের জন্য বেড়িয়ে পড়ত। কিন্তুু এখন আর সেই দৃশ্য চোখে পড়ে না। মাঠে শোনা যেত কৃষকের গলার গরু তাড়ানোর হাট হাট, ডান বাম শব্দ। বর্তমান সময়ের ছেলে মেয়েদের কাছে এসব কিছু এখন রুপকথার গল্পের মত।

বিশ্বের উন্নত দেশের সাথে তাল মিলিয়ে আধুনিকতার ছোয়া আমাদের দেশের কৃষিতে ও পড়েছে। যার ফলে সব কিছুর পরিবর্তনের সাথে সাথে কৃষি ক্ষেত্রও লেগেছে পরিবর্তনের ছোয়া। চাষাবাদে লেগেছে যান্ত্রিকতার প্রভাব।

এমন একটা সময় ছিল কৃষকেরা চাষাবাদে প্রাচীন পদ্ধতির ওপর নির্ভরশীল ছিল। যার কারণে কৃষি পন্য উৎপাদন কম ছিল। কিন্তুু বর্তমানে যান্ত্রিক পদ্ধতি প্রয়োগের কারণে কৃষি শিল্পের উৎপাদনে ব্যাপক প্রসারতা লাভ করেছে। কৃষি এখন হয়ে উঠছে একটা ব্যবসায়িক ও লাভজনক শিল্প। কৃষির এই আধুনিকায়নের কারণে দেশের সামগ্রিক খাদ্য চাহিদার উদ্বৃত্ত থেকে যাচ্ছে। 

সরেজমিনে বাকেরগঞ্জের গারুরিয়া ইউনিয়নের সাহেবপুর গ্রামে গেলে এমনি এক লাঙ্গল জোয়ালের গরুর হালের দেখা মিলল। স্বরুপ আলী মীর নামের এক প্রান্তিক চাষী গরু দিয়া এখনো জমি চাষ করছেন। তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গরু দিয়া জমি চাষ করলে চাষ ভালো হয় এবং খরচ কম। অপরদিকে ফষল ও ভালো হয়। স্বল্প পরিসরে নিজের জমি চাষ করতে এই প্রাচীন পদ্ধতিকে তার মতে লাভ জনক বলে জানান। কেননা এখানে যে গরু দিয়া হাল চাষ করা হয় পরবর্তীতে সেই গরু তার পুজি হিসাবে থেকে যায়।

 

ঢাকানিউজ২৪.কম / জেডএস

আরো পড়ুন

banner image
banner image