• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৮ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

অবৈধ কোরবানির হাটে আদায় লাখ-লাখ টাকা! মোল্লার হাট


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ০৯ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০:১১ এএম
কোরবানির হাটে আদায় লাখ-লাখ টাকা!
মোল্লার হাট

নাজমুল হোসেন, নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার একটি জনপ্রিয় হাট হচ্ছে মোল্লার হাট। কোরবানি ঈদ উপলক্ষে এ হাটে প্রচুর গরু, মহিষ ও ছাগল উঠে।

কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই হাটবাজারের কোন অনুমতি দেওয়া হয়নি। কিন্তু রশিদ ব্যবহার করে আদায় করা হচ্ছে লাখ-লাখ টাকা।

আজ শনিবার (৮ জুন) দুপুরে দক্ষিণ চর বংশির ইউনিয়নের মোল্লার হাট বাজারে গেলে চোখে পড়ে ৩টি পয়েন্টে গরু বাজার, ১টি ছাগল বাজার ও ১টি মহিষের বাজার। ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দেখা যায়নি। এনিয়ে মানুষের মাঝে নিরাপত্তা নিয়ে চরম আতংক বিরাজ করছে।

খবর নিয়ে জানা যায়, মোল্লার হাট বাজার সাপ্তাহ দুইদিন বসে। একদিন শনিবার অন্যদিন মঙ্গলবার। এ বাজারে সঠিক নাম হচ্ছে বাহার আলী মোল্লার হাট।

কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে লক্ষ্মীপুর জেলার সবচেয়ে বড় পশুর হাট মিলে মোল্লার বাজার।

সরকারিভাবে রায়পুরের মোল্লারহাট বাজারে কোরবানি পশুর হাটের অনুমতি নেই। তবুও প্রভাবশালী একটি চক্র অবৈধভাবে পশুর হাট বসিয়ে লাখ লাখ টাকা টোল আদায় করছে।

মোল্লার হাটে লক্ষ্মীপুর জেলার বাহিরে নোয়াখালী, ভোলা, বরিশাল ও শরীয়তপুরসহ বিভিন্ন জেলার খামারি ও বেপারীরা গরু নিয়ে আসে। এ হাট থেকে ১-২ কিলোমিটার দূরত্ব মেঘনা নদী। এজন্য নৌপথে গরু আনা নেওয়া খুব সহজ হয় খামারিদের।

মোল্লার হাটের ২০১৪ সালের পর থেকে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত। জনস্রোতে রয়েছে সরকার বছরে প্রায় ২ থেকে ৩ কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে এ বাজার থেকে। আর আঙ্গুল ফুলেফেঁপে উঠছে ক্ষমতাসীন দলের একটি গ্রুপ।

মোল্লার হাট পুরো নিয়ন্ত্রণ করেন রশিদ মোল্লা তার ছেলে মনির মোল্লা, দিদার মোল্লা, হারুন মোল্লাসহ তাদের মোল্লা পরিবারের একটি গোষ্ঠী।

রায়পুর উপজেলার ৮নং দক্ষিণ চরবংশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মনির হোসেন মোল্লা বলেন, বাহার আলী ওয়াক্‌ফ এস্টেটের নামে মোল্লার হাট বাজার। পশুর হাট থেকে যে টোল আদায় করা হয়। সেই টাকা মোল্লার হাট জামে মসজিদের উন্নয়ন কাজে ব্যয় করা হয়। দৃশ্যমান টোল আদায় হয় না।

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক (ডিসি) সুরাইয়া জাহান বলেন, যেসব স্থানে পশুর হাটের অনুমতি নেই। কেউ যদি অবৈধভাবে হাট বসায়, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশ সুপার তারেক বিন রশিদ বলেন, অবৈধ পশুর হাটের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য থাকলে সঙ্গ-সঙ্গেই জেলা পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নিবে।

উল্লেখ্য, আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে লক্ষ্মীপুরে অর্ধশতাধিক স্থানে বসবে কোরবানির পশুর হাট বিষয়টি লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক সুরাইয়া জাহান ৫ জুন তার কার্যালয়ে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রস্তুতি বিষয়ক সভায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image