• ঢাকা
  • বুধবার, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২১ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

নান্দাইলে চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরন হলেও ধান সংগ্রহে জিরো    


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বুধবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:৫৩ পিএম
নান্দাইলে চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরন হলেও ধান সংগ্রহে জিরো    
চাল

জালাল উদ্দিন মন্ডল, নান্দাইল প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের নান্দাইলে সরকারিভাবে আমন মৌসুমে ধান-চাল ক্রয়ের লক্ষ্য মাত্রা পূরনে শঙ্কা রয়েছে। তবে চাল ক্রয়ের লক্ষ্যেমাত্রা পূরণ হলেও ধান ক্রয়ে সংগ্রহে জিরো। এ পর্যন্ত এক ছটাক ধানও ক্রয় করতে পারেনি উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অধিদপ্তর। শুধু তাই নয়, গত আমন মৌসুমেও সরকারিভাবে ধান ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা পুরণ হয়নি। নান্দাইল উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অধিদপ্তর থেকে জানাগেছে, চলতি মৌসুমে সরকারিভাবে আমন ধান ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৭৩১ মেট্রিক টন এবং চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা ১০৮০ মেট্রিক টন। ধান ক্রয়ে প্রতি মণের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১২০০ টাকা। এতে প্রতি কেজির মূল্য হচ্ছে ৩০ টাকা।

কিন্তু ৭৩১ মেট্রিক টন ধান ক্রয়ের মধ্যে এক কেজি ধানও ক্রয় অর্থাৎ সংগ্রহ করা যায়নি। সরজমিন বিভিন্ন বাজার পরিদর্শনে জানাগেছে, এ বছর আমনের ফসল আকস্মিক বন্যাতে তলিয়ে যাওয়ায় ধান উৎপাদন কম হওয়ায় বাজারে ধানের দাম বেড়ে গেছে। ফলে সরকারিভাবে ধানের মূল্যের চেয়ে বাজারে ধানের দাম ২০০ থেকে ৩০০ টাকা বেশি থাকায় কৃষকরা তাদের ধান বাজারের ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রয় করে দিচ্ছেন। অপরদিকে টন প্রতি চালের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৪ হাজার টাকা। এতে প্রতিমণ চালের মূল্য হচ্ছে ১৭৬০ টাকা এবং ৪৪ টাকা প্রতি কেজি। তবে ১০৮০ মেট্রিক টন ধানের বিপরীতে এ পর্যন্ত চাল ক্রয় করা হয়েছে ৯৮৯ মেট্রিক টন।

তবে ধান ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে অনলাইনে আবেদনের জন্য মাইকিং ও লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে প্রচারণা চালানোও হয়েছিল বলে জানিয়েছেন উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা (ওসিএলডি) হুমায়ূন কবীর তালুকদার। কিন্তু কোন কৃষক বা কেউ ধান বিক্রয়ের জন্য অনলাইনে আবদেন করেনি। নান্দাইলের ও সি এল এসডি হুমায়ুন কবির তালুদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সরকারিভাবে চাল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় সম্পন্ন, তবে কৃষকরা বাজারে ধানের মূল্য বেশি পাওয়ায় সরকারিভাবে ধান ক্রয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে নান্দাইল উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ আনিছুজ্জামান বলেন, ধানের মূল্য স্থানীয় বাজারে বেশি থাকায় কৃষকেরা সরকারি গুদামে ধান সরবরাহ করতে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। তারপরও আমন ধান সংগ্রহের এখনও সময় আছে। আমরা এখনও চেষ্টা করছি। এ ব্যাপারে নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অরুণ কৃষ্ণ পাল বলেন, বিষয়টি ওসিএলএসডি’র সাথে কথা বলা বলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image