• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

শিক্ষককে বরখাস্ত করায় মানববন্ধন ও ফেসবুকে প্রতিবাদ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:১২ পিএম
প্রতিবাদের ঝড় তোলেন নবগ্রাম ইউনিয়ন উচ্
প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মানব বন্ধন

সাকিব আহমেদ, (মানিকগঞ্জ) : মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার নবগ্রাম ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর এক ছাত্রকে বেত্রাঘাতের অভিযোগে সহকারী শিক্ষক মো. আনিস উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করায় ১৪ই এপ্রিল তারিখে মাঠ প্রাঙ্গণে প্রায় দুইশতাধিক প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা  মানব বন্ধন করেন।

বহিষ্কারাদেশ দেওয়ার পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রতিবাদের ঝড় তোলেন নবগ্রাম ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা।

উক্ত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় শিক্ষার্থীরা উল্লেখ করে, আনিস স্যার একজন ভালো মানুষ ও সকলের প্রিয় বিগত ত্রিশ বছর যাবত এই বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করছেন। আমাদের ভালোর জন্যই মাঝে মাঝে শাসন করেন আবার স্নেহও করেন। হয়তো ভুলবশত একটু আঘাত লেগে গেছে, এই বিষয়ে অভিভাবক আক্তার হোসেনের কাছে তিনি হাত ধরে  ক্ষমাও চেয়ে ছিলেন। তার পড়েও তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এই বহিষ্কারের আমরা তীব্র নিন্দা প্রকাশ করি। এবং আমাদের দাবী একটাই সাময়িক বহিষ্কার আদেশ স্থগিত করে পুনরায় তার কর্মস্থলে বহাল রাখা হোক।

জানা যায়, মো. আনিস উদ্দিন বিগত ত্রিশ বছর যাবত এই বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করছেন। গত ত্রিশ বছরে শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রিয় হয়ে উঠেন ।এই বহিষ্কারাদেশের পর থেকেই ফেসবুকে প্রতিবাদ ও নিন্দার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। শিক্ষার্থী সহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ তাদের নিজস্ব মতামত তুলে ধরে বহিষ্কারাদেশ স্থগিতের দাবী করছেন।

এ ব্যাপারে মো. আনিস উদ্দিন জানায়, অনেক বছর ধরেই একটি কুচক্র আমার পেছনে লেগে আছে। গত কয়েক বছর ধরেই আমি খুব কষ্টে এখানে টিকে আছি। আমার স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমাদের ক্লাস টিচারদের নিদর্শনা দিয়েছিলেন যে সকল ছাত্রদের চুল বড় তাদের চুল কেটে আসার জন্য আমরা যেনো তাদের বলি। আমি সবাইকে কয়েক দিন ধরে বলে আসছি সবাই যেন চুল কেটে সুন্দর হয়ে স্কুলে আসেন সবাই আমার কথা শুনলেও ওই ছেলেটা শুনেনি আমি তাকে বারবার বোঝানোর চেষ্টা করেছি কিন্তু সে যখন কোন ভাবেই আমার কথা শুনছিলো না তখন আমি তাকে বড় কলম দিয়ে তার পিঠে চারবার আঘাত করেছি। এটা আমার ভুল হতে পারে । সে জন্য আমি তার অভিভাবকের কাছে গিয়ে  ক্ষমা চেয়েছি। তবু আমার সাথে শত্রুতা করে আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে নবগ্রাম ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার পারভেজ বলেন, আমরা সকল ছাত্র ছাত্রীদের বলি স্কুল ড্রেস পরে স্কুলে আসার জন্য। সেই ভাবে চুল কেটে ছোট রাখতে বলে থাকি। সহকারী শিক্ষক আনিস উদ্দিন কে সামরিক বহিষ্কার করা হয়েছে ষষ্ঠ শ্রেণীর এক ছাত্রকে বেত্রাঘাতের অভিযোগে।

ঢাকানিউজ২৪.কম /

শিক্ষা বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image