• ঢাকা
  • বুধবার, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ; ২১ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

নান্দাইলে ভাতাভোগীদের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে প্রতারক চক্র 


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০৬ ফেরুয়ারী, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০:৪৮ এএম
নান্দাইলে ভাতাভোগীদের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে প্রতারক চক্র 
প্রতারক

জালাল উদ্দিন মন্ডল, নান্দাইল প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলায় ২০২৩-২০২৪ অর্থ বছরে বয়স্ক, বিধবা, স্বামী পরিত্যক্তা, প্রতিবন্ধী ও পুঙ্গু ভাতা সহ বিভন্ন ধরনের ভাতাভোগীর দ্বিতীয় কিস্তির টাকা অভিনব কৌশলে হাতিয়ে নিচ্ছে প্রতারক চক্র। ভাতার টাকা মোবাইলে আসার পরপরেই কোন কোন ক্ষেত্রে ভাতাভোগীর মোবাইল নম্বরে কথা বলে, আবারও কখনও স্বয়ংক্রিয়ভাবেই ভাতার টাকা উধাও হয়ে যাচ্ছে। 

আসন্ন পবিত্র মাহে রহমাজনের পূর্বে এভাবে ভাতার টাকা হাতিয়ে নেওয়ায় চরম বিপর্যের মুখে পড়েছে অসহায় দরিদ্র ভাতাভোগীগণ। ব্যাংকিং সেবা বাদ দিয়ে ডিজিটাল প্রযুক্তি হিসাবে মোবাইলে নগদ একাউন্টে ভাতার টাকা পাঠানোর সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে এ চক্রটি। এতে করে নগদ ব্যাংকিং ব্যবস্থার প্রতি আস্থা হারাচ্ছে সাধারন মানুষ। 

তবে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানালেও মিলছেনা এর কোন সুনির্দিষ্ট প্রতিকার। নগদের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ এ প্রতারণার সাথে পরোক্ষভাবে জড়িত আছে বলে নগদ ব্যাংকিং ব্যবস্থাকেই দায়ী করছে ভোক্তভোগী সহ সুশীল সমাজের লোকজন। নান্দাইল উপজেলা সমাজ সেবা কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার ৪১ হাজার অসহায় ভাতাভোগী রয়েছে। 

প্রতারক চক্ররা সমাজ সেবা অফিসের নাম ও কর্মকর্তার নাম ব্যবহার করে সেমস্ত ভাতাভোগীর নগদ একাউন্টের মোবাইল নম্বরে কথা বলে বা ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়ে পিন বা ওটিপি সংগ্রহ করে ভাতাভোগীর অজান্তে বা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ক্যাশ আউট করে অথবা পিটুপি সেন্ট মানি করে ভাতাভোগীদের টাকা তুলে নিচ্ছে। 

এ বিষয়ে চন্ডিপাশা ইউনিয়নের খামারগাঁও গ্রামের বয়স্ক ভাতাভোগী রোকেয়া খাতুন বলেন, গত ২৮ জানুয়ারি মোবাইলের নগদ একাউন্টে টাকা আসে। টাকা আসার কিছুক্ষণ পরেই সমাজ সেবা অফিসের নাম করে একজন ব্যক্তি ফোন দিয়ে পিন নাম্বার চাপতে বলে, পরে দেখি আমার মোবাইলে টাকা নেই। 

অপরদিকে শেরপুর ইউনিয়নের প্রতিবন্ধী মমতাজ বেগম ও আচারগাঁও ইউনিয়নের ফাহিম আহম্মেদ রাজু জানায়, হঠাৎই তাদের মোবাইলে একটা ম্যাসেজ আসে এবং পরে কল দিয়ে পিন ও ওটিপি নাম্বার চাইলে তারা তা নির্বিঘ্নে দিয়ে দেয়। পরে দেখতে পারে তাদের একাউন্টে টাকা নাই। এ নিয়ে প্রতিদিনই সমাজ সেবা অফিসে ভিড় জমাচ্ছে ভোক্তভোগীরা। উক্ত প্রতারক চক্রকে আইনের আওতায় আনার জন্য এবং হয়রানিমুক্ত ভাতাভোগীর অর্থ প্রাপ্তির জন্য অভিযোগের মাধ্যমে উপজেলা সমাজ সেবা অফিস কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন। এছাড়া বয়স্ক ভাতাভোগী সুফিয়া আক্তার সহ আরো অনেক ভাতাভোগী বলেন, ভাই-আমরা আগেই ভালা আছিলাম। ব্যাংকে লাইন দিয়ে দাড়িয়ে থাকলেও ঠিকই টাকা পেয়ে শান্তি পেতাম। এখন পাইলে কি অইবো আবার নিয়ে যায়। এ বিষয়ে ময়মনসিংহ জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আব্দুল কাইয়ূমের সাথে সেলফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, শুধু নান্দাইলে নয়, সারা ময়মনসিংহ বিভাগেই এমনটি ঘটছে। ভাতাভোগীরা তাদের পিন নাম্বার ও ওটিপি দিয়ে দেওয়ায় এই কান্ড ঘটেছে। 

এ বিষয়ে কোন প্রতিকার পাচ্ছি না। নান্দাইল উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা ইনসান আলী বলেন, এ বিষয়ে কয়েকটি অভিযোগ পেয়েছি এবং তা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার অরুণ কৃষ্ণ পাল বলেন, বিষয়টি আমার জানানেই, তবে খোঁজ নিয়ে বিষয়টি দেখছি।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image