• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৪ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

শুরু হলো উদীচীর একাদশ সত্যেন সেন গণসঙ্গীত উৎসব


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: শনিবার, ১১ মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১১:১৯ এএম
শুরু হলো
উদীচীর একাদশ সত্যেন সেন গণসঙ্গীত উৎসব

ডেস্ক রিপোর্টার : প্রলয় বাজাও গানে, সাহস জাগাও প্রাণে' এই শ্লোগান নিয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনে শুরু হলো বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী আয়োজিত একাদশ সত্যেন সেন গণসঙ্গীত উৎসব ও জাতীয় গণসঙ্গীত প্রতিযোগিতা। ১০, ১১ ও ১২ মার্চ তিনদিনব্যাপী উৎসবের প্রথম দিন ছিল ১০ মার্চ শুক্রবার। এদিন বিকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বীর ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় উৎসবের কার্যক্রম। 

এরপর বিকাল ৪টায় উৎসব উদ্বোধন করেন উদীচীর অন্যতম উপদেষ্টা, বিশিষ্ট লোকশিল্পী সাইদুর রহমান বয়াতি। এসময় সমবেতভাবে জাতীয় এবং সংগঠন সঙ্গীত পরিবেশন করেন উদীচীর শিল্পীরা। উদ্বোধন ঘোষণার সাথেসাথে একাদশ উৎসবের সাথে সামঞ্জস্য রেখে একজন ঢাকি এবং ১০ জন ঢুলি মিলে ঢাক ও ঢোলের বাদ্যে চারপাশ মুখরিত করে তোলেন। এসময় নানা রঙের আবির ছড়িয়ে দিয়ে নেচে গেয়ে আনন্দে মাতেন উদীচীর শিল্পী-কর্মীরা।

এরপর শুরু হয় আলোচনা পর্ব। উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি অধ্যাপক বদিউর রহমান-এর সভাপতিত্বে আলোচনা পর্বের শুরুতে আমন্ত্রিত অতিথিদের ফুল, উত্তরীয় এবং ক্রেস্ট দিয়ে স্বাগত জানান উদীচীর কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। এরপর আলোচনা পর্বে বক্তব্য রাখেন সংস্কৃতিজন ম. হামিদ, এবারের উৎসবের আমন্ত্রিত অতিথি, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিশিষ্ট গণসঙ্গীত শিল্পী কংকন ভট্টাচার্য্য, বিশিষ্ট গণসঙ্গীত শিল্পী কফিল আহমেদ প্রমুখ। আলোচনা করেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি মাহমুদ সেলিম, হাবিবুল আলম এবং উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক অমিত রঞ্জন দে।

এবারের গণসঙ্গীত উৎসবের প্রথম দিন সন্ধ্যায় মঞ্চে একক গান পরিবেশন করেন আমন্ত্রিত শিল্পী কংকন ভট্টাচার্য্য, ফকির সিরাজ, কফিল আহমেদ, তানভীর আলম সজীব, সুরাইয়া পারভীন, আবিদা রহমান সেতু এবং শিল্পী আকতার। আর দলীয়ভাবে গণসঙ্গীত পরিবেশন করে ঋষিজ, বহ্নিশিখা, সহজিয়া, ভিন্নধারা এবং উদীচী। এর আগে, ১০ মার্চ শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত, আবৃত্তি ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে শুরু হয় জাতীয় পর্যায়ের গণসঙ্গীত প্রতিযোগিতা। জেলা পর্যায়ের পর যেসব প্রতিযোগী বিভাগীয় পর্যায়ে বিজয়ী হয়েছেন তারা জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। ‘ক’, ‘খ’, ‘গ’ ও ‘ঘ’ (দলীয়)- এই চারটি বিভাগে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। একক প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে অনুর্ধ্ব-১২ বছর বয়সীরা ‘ক’ বিভাগে, অনূর্ধ্ব- ১৮ বছর বয়সীরা ‘খ’ বিভাগে এবং ১৮ বছরের বেশি বয়সী সকল প্রতিযোগী ‘গ’ বিভাগের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। দলীয় প্রতিযোগিতা (‘ঘ’ বিভাগ)-এর ক্ষেত্রে কমপক্ষে পাঁচজন শিল্পীর অংশগ্রহণ বাঞ্ছনীয় ছিল। তিনটি একক বিভাগে মোট ৪৮ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া, ‘ঘ’ বা দলীয় বিভাগে মোট ১০টি দল প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেন। প্রতিযোগিতায় বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আব্দুল ওয়াদুদ, মাহমুদ সেলিম, ড. বিশ^জিৎ রায় এবং শাহীন সরদার।

উদীচীর একাদশ সত্যেন সেন গণসঙ্গীত উৎসব ও জাতীয় গণসঙ্গীত প্রতিযোগিতার চ‚ড়ান্ত পর্বে ‘ক’ বিভাগে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন নেত্রকোনার অপলা সাহা। দ্বিতীয় হয়েছেন বগুড়ার সৌমিকা লাহিড়ী। আর তৃতীয় স্থান পেয়েছেন নেত্রকোনার আইরিন জাহান পলি।

‘খ’ বিভাগে প্রথম হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন মৌলভীবাজারের তনুশ্রী পাল শ্রেয়া। দ্বিতীয় স্থান পেয়েছেন সিরাজগঞ্জের আনন্দ কুমার দাস। তৃতীয় হয়েছেন দিনাজপুরের বর্ণমালা ইসলাম প্রজ্ঞা। ‘গ’ বিভাগে জাতীয় পর্যায়ে সেরা হয়েছেন রাজবাড়ীর মো. আওয়াল মোল্লা, দ্বিতীয় স্থান পেয়েছেন যশোরের মুস্তাহীদ হাসান এবং তৃতীয় হয়েছেন ঠাকুরগাঁওয়ের অরুণ চন্দ্র বর্মণ। এছাড়া, ‘ঘ’ অর্থাৎ দলীয় বিভাগে সেরা হয়েছে উদীচী নোয়াখালী জেলা সংসদ। দ্বিতীয় হয়েছে যুগ্মভাবে উদীচী মাদারীপুর জেলা সংসদ এবং মৌলভীবাজার জেলা সংসদ। আর তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে বরিশালের উত্তরণ সাংস্কৃতিক সংগঠন।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন ১১ মার্চশনিবার বিকাল ৪টা থেকে শুরু হবে আলোচনা পর্ব। এতে আলোচনা করবেন এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের চেয়ারম্যান এস এম পারভেজ তমাল, এবারের উৎসবের আমন্ত্রিত অতিথি, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিশিষ্ট গণসঙ্গীত শিল্পী মন্দিরা ভট্টাচার্য্য, গীতিকার ফেরদৌস হোসেন ভ‚ঁইয়া, উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি প্রবীর সরদার এবং জামসেদ আনোয়ার তপন। 

উৎসবের তৃতীয় ও শেষ দিন ১২ মার্চরবিবার, ছায়ানট মিলনায়তনে ভারত থেকে আগত অতিথি শিল্পী কংকন ভট্টাচার্য্য, মন্দিরা ভট্টাচার্য্য ও রঞ্জিনী ভট্টাচার্য্যরে পরিবেশনা অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image