• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৩ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

জলঢাকায় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে জাতীয় ফল কাঁঠালের মুচি


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২:৪৯ পিএম
জলঢাকায় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে
জাতীয় ফল কাঁঠালের মুচি

জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলায় প্রতিটি গ্রামে চলতি মৌসুমে গাছ জুড়ে শোভা পাচ্ছে মৌসুমী ফল কাঠালের মুচি। সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা যায় গত বছরের মতো এ বছরও প্রতিটি গাছে প্রচুর কাঠালের মুচি ধরেছে।

বসতবাড়ির আঙ্গিনা থেকে শুরু করে ফসলী জমির দু’ধারসহ বিভিন্ন জমিতে জাতীয় ফল কাঁঠালের ফলন চোখে পড়ার মতো। গাছের গোড়া থেকে শুরু করে মগডাল পর্যন্ত থোকা থোকা ঝুলে থাকা কাঁঠালের মুচিগুলোই বলে দেয় ফলনের জন্য উপযোগি এই এলাকার মাটি।

এবার উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কাঠাল গাছে ব্যাপকহারে কাঁঠালের ফলন লক্ষণীয়। এই মৌসুমে এলাকার অনেক পরিবার কাঁঠাল বেচা-কেনা করে আয় করে থাকেন। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে কথা হয় কৈইমারী ইউনিয়নের আবুল হোসেন, গোলমুন্ডা ইউনিয়নের আব্দুল হালিম ও বালাগ্রাম ইউনিয়নের আমিনুর রহমান এর সাথে। তাদের সাথে কথা বলে জানা যায় - এই বছর গাছে প্রচুর কাঁঠালের মুচি এসেছে।

বড় গাছে ১০০-২০০টি এবং ছোট গাছে ৭০-১০০ টি করে মুচি রয়েছে। যদি আবহাওয়া ঠিক থাকে তাহলে এ বছর প্রতিটি গাছে প্রায় শতাধিক কাঠাল থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন কাঁঠাল চাষিরা। তবে কাঠাল পরিপক্ষ হতে আরো ৪০-৫০ দিনের মতো সময় লাগতে পারে।

তারা জানান- আকৃতিভেদে প্রতিটি কাঁঠাল খুচরা ও পাইকারি মূল্য আনুমানিক ৫০ থেকে ১৫০ টাকা হয়ে থাকে। মৌসুমী ফল কাঁঠাল সংরক্ষণ এবং সুষ্ঠু বাজারজাতকরণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা থাকলে চাষীরা কাঁঠালের ভালো দাম পাবেন বলে জানান তারা।এবং সংশ্লিষ্টদের কাছে এমনটাই প্রত্যাশা করেন কাঁঠাল চাষিরা।

জলঢাকা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুমন আহম্মেদ জানান, উপজেলায় ৫১ হেক্টর আবাদি জমি রয়েছে। এবার ১৯৮৪ হেক্টর জমিতে কাঁঠালের চাষাবাদ হয়েছে। কাঁঠালের তেমন কোন রোগ বালাই হয় না তবুও কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে বিশেষ সুবিধা ও যথাযথ পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

উপজেলা বিভিন্ন এলাকা জুড়ে প্রতিটি কাঁঠাল গাছেই ব্যাপকহারে মুচি ধরেছে। গতবছরের তুলনায় এবছর আশানুরুপ ফলন আশা করছি।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image