• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ১৮ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

বিতর্কের পর ক্ষমা চাইলেন মালদ্বীপের প্রাক্তন মন্ত্রী


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০৯ এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৮:০৩ এএম
মালদ্বীপ
মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বিতর্কিত মন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: সম্প্রতি মালদ্বীপের নেতাদের বাকবিতণ্ডার কারণে ভারতের সঙ্গে উত্তেজনা দেখা দেয়। এখন আবারও মালদ্বীপের একজন বরখাস্ত মন্ত্রী তার সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট দিয়ে বিতর্ক তৈরি করেছেন। এর পর বরখাস্ত হওয়া মন্ত্রী বিরোধী দল মালদ্বীপ ডেমোক্রেটিক পার্টির (এমডিপি) বিরুদ্ধে তার সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন।

 মরিয়ম শিউনা, যিনি মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ মুইজ্জুর একই দলের অন্তর্গত, ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন, "আমার সাম্প্রতিক পোস্টের কারণে যেকোন বিভ্রান্তি বা অপরাধের জন্য আমি আন্তরিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থী।

ক্ষমা চেয়ে কী লিখেছেন মালদ্বীপের মন্ত্রী?

তিনি আরও বলেন, "এটা আমার নজরে আনা হয়েছে , মালদ্বীপের বিরোধী দল এমডিপি-র প্রতি আমার প্রতিক্রিয়ায় ব্যবহৃত ছবিটি ভারতীয় পতাকার অনুরূপ। আমি স্পষ্ট করতে চাই যে এটি সম্পূর্ণ অনিচ্ছাকৃত ছিল এবং এর কারণে হতে পারে এমন কোনো ভুল বোঝাবুঝির জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী।

 প্রাক্তন মন্ত্রী বলেন, "মালদ্বীপ ভারতের সাথে তার সম্পর্ক এবং আমাদের পারস্পরিক সম্মানকে অত্যন্ত মূল্য দেয়। ভবিষ্যতে, আমি যে বিষয়বস্তু শেয়ার করি তা যাচাই করার ক্ষেত্রে আমি এই ধরনের ভুল না করতে আরও সতর্ক থাকব।

কি নিয়ে বিরোধ ছিল?

শিউনার পোস্টে MDP পোস্টারে অশোক চক্রের অনুরূপ একটি চিহ্ন দিয়ে কম্পাস প্রতিস্থাপিত হয়েছিল। রাষ্ট্রপতি মুইজ্জু ক্ষমতা গ্রহণের পর ভারত ও মালদ্বীপের মধ্যে কূটনৈতিক উত্তেজনার পটভূমিতে এই পোস্টটি এসেছে। 

রাষ্ট্রপতি মানবিক সেবার জন্য দ্বীপরাষ্ট্রে মোতায়েন প্রায় ৮০ জন ভারতীয় সৈন্যকে ফিরিয়ে আনার জন্য জোর দিচ্ছেন। তার আমলে চীনের কাছে মালদ্বীপের আউটরিচও দেখা গেছে। দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই প্রেসিডেন্ট মুইজু বেইজিং সফর করেন এবং চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

সম্প্রতি ভারত ও মালদ্বীপের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে

এরপর ফেরার সময় কোনো দেশের নাম না করে তিনি বলেন, আমরা ছোট হতে পারি, কিন্তু তা আমাদের হুমকি দেওয়ার লাইসেন্স কারো নেই। এই মন্তব্যকে ভারতের বিরুদ্ধে কটাক্ষ হিসেবে দেখা হচ্ছে।

 নির্বাচনের কাছাকাছি আসার সাথে সাথে মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি একটি সমঝোতামূলক অবস্থান গ্রহণ করেছেন এবং বলেছেন  ভারত তার দেশের "ঘনিষ্ঠ মিত্র" থাকবে।

 তিনি 2023 সালের শেষ নাগাদ মালদ্বীপকে ঋণ ত্রাণ প্রদানের জন্য নয়াদিল্লিকে অনুরোধ করেছিলেন, যা ভারতের কাছে প্রায় $400.9 মিলিয়ন পাওনা রয়েছে।

মালদ্বীপের মন্ত্রী তার বক্তব্যের কারণে ইতিমধ্যেই শিরোনাম হয়েছেন

এদিকে, বরখাস্ত হওয়া মন্ত্রীর এখন-মুছে ফেলা মন্তব্য পিপলস ন্যাশনাল কংগ্রেসকে কঠিন পরিস্থিতিতে ফেলেছে। এই প্রথম নয় যে শিউনা ভারত সম্পর্কে তার মন্তব্যের জন্য লাইমলাইটে এসেছেন। 

এর আগে, মালদ্বীপের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি মহম্মদ নাশিদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির লাক্ষাদ্বীপ সফর নিয়ে তার মন্তব্যের তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন।

মালদ্বীপের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ নাশিদ বলেছেন  মালদ্বীপের সরকারী কর্মকর্তা মরিয়ম শিউনা একটি গুরুত্বপূর্ণ মিত্রের নেতার প্রতি এমন ভয়ঙ্কর ভাষা ব্যবহার করেছেন, যিনি মালদ্বীপের নিরাপত্তা ও সমৃদ্ধির জন্য গুরুত্বপূর্ণ। 

মোহাম্মদ মুইজ্জু সরকারের উচিত এইসব মন্তব্য থেকে নিজেকে দূরে রাখা এবং ভারতকে আশ্বস্ত করা তারা সরকারের নীতির প্রতিফলন ঘটায় না। এর পরপরই শিউনাসহ আরও দুজনকে মন্ত্রী পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এসডি

আরো পড়ুন

banner image
banner image