• ঢাকা
  • শনিবার, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ০৩ ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

অসচ্ছল নারীদের মাসে ৩০ কেজি চাল দেবে সরকার


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ০৭ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০২:৪০ পিএম
অসচ্ছল নারীদের চাল দেবে সরকার
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা

নিউজ ডেস্ক :  মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা জানিয়েছেন, সরকার অসচ্ছল নারীদের মাসে ৩০ কেজি করে চাল দেবে । ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট প্রোগ্রামের আওতায় এ চাল দেয়া হবে।

সোমবার (৭ নভেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট মিস ওয়েব পোর্টাল এবং ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট অ্যাপ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট কার্যক্রমের (ভিডব্লিউবি) ২০২৩-২০৪ চক্রের উপকারভোগী নির্বাচনের জন্য এ ওয়েব পোর্টাল ও অ্যাপ করা হয়েছে। এটি মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় বাস্তবায়িত দেশের গ্রামীণ দুস্থ নারীদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে একটি বৃহত্তর সামাজিক নিরাপত্তামূলক কর্মসূচি। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ কর্মসূচি নারীদের খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা, পুষ্টিহীনতা ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এর আওতায় আগামী জানুয়ারি থেকে দেশের ১০ লাখ ৪০ হাজার দরিদ্র নারীকে দুই বছর মেয়াদে, প্রতি মাসে খাদ্য সহায়তা হিসেবে পুষ্টি সমৃদ্ধ ৩০ কেজি করে চাল দেয়া হবে।

 এ সময় উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হাসানুজ্জামান কল্লোল, মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভীন ও অতিরিক্ত সচিব ড. মহিউদ্দীন আহমেদ। এছাড়াও অনুষ্ঠানে বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, ভালনারেবল উইমেন বেনিফিটের উপকারভোগী হবে অসচ্ছল, বিধবা ও তালাকপ্রাপ্তা নারী, যাদের পরিবারের নিয়মিত উপার্জনক্ষম সদস্য বা নিয়মিত আয় নেই এমন নারী। যারা ভূমিহীন ও নিজ মালিকানা জমির পরিমাণ ০.১৫ শতকের কম। ২০ থেকে ৫০ বছর বয়সী নারী ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত হবে।

তিনি বলেন, যে সব পরিবার দৈনিক দিন মজুর হিসেবে জীবিকা নির্বাহ করে এবং মাটির দেয়াল/পাটকাঠি বা বাঁশের তৈরি ঘরে থাকে, যে পরিবারে কিশোরী বা ১৫-১৮ বছর বয়সী মেয়ে, অটিজম/প্রতিবন্ধী সন্তান এবং বিদেশ থেকে প্রত্যাগত অভিবাসী নারীরা এতে অগ্রাধিকার পাবেন। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর হালনাগাদ করা উপজেলার পোভার্টি ম্যাপ অনুযায়ী উপজেলাভিত্তিক উপকারভোগী নির্বাচন করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশের ৬৪ জেলার ৪৯২ উপজেলায় সব ইউনিয়নে ডিডব্লিউবি কার্যক্রম বাস্তবায়িত হবে। পৌরসভা ও সিটি করপোরশন এলাকায় ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট বাস্তবায়ন বা কার্ড প্রদান করা হবে না। ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর কোনো ইউনিয়ন পৌরসভা/সিটি করপোরশনের অন্তর্ভুক্ত হলে উপকারভোগীদের চলমান খাদ্য সহায়তা ও প্রশিক্ষণ অব্যাহত থাকবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দুই বছর মেয়াদে ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট কার্যক্রমের আওতায় ১০ লাখ ৪০ হাজার উপকারভোগী নির্বাচন করা হবে। তারা ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাস থেকে দুই বছর প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাল পাবে। ২০২৫-২০২৬ সাল থেকে ১৫ লাখ উপকারভোগীকে এ কর্মসূচির আওতাভুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার, তথ্য আপা, স্থানীয় কম্পিউটারের দোকান থেকে এবং ১০৯ ও ৩৩৩ হটলাইন নাম্বারে কল করে আবেদন করা যাবে। পার্বত্য ও দুর্গম এলাকা যেখানে ইন্টারনেট সংযোগ নেই সেখানে মোবাইল অ্যাপ ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট কার্যক্রমের মাধ্যমে অফলাইনে আবেদনের সুযোগ রয়েছে। আবেদন প্রক্রিয়া চলবে ৭ নভেম্বর থেকে ২১ নভেম্বর পর্যন্ত।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

নারী ও শিশু বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image