• ঢাকা
  • রবিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৬ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

মূল্যস্ফীতি কমাতে ও রিজার্ভ বৃদ্ধিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৩ সিদ্ধান্ত


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ০৯ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ০৯:১৪ পিএম
বিনিময় হার পুনর্বিন্যাস ও ক্রলিং পেগ পদ্ধতি চালু করা
বাংলাদেশ ব্যাংকের ৩ সিদ্ধান্ত

নিউজ ডেস্ক:  চলমান উচ্চ মূল্যস্ফীতি ও রিজার্ভ কমে যাওয়ার মতো জটিল পরিস্থিতি মোকাবিলা করে দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে তিনটি বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এসব সিদ্ধান্তের একটি হচ্ছে—ডলারের বিপরীতে টাকার দাম আরও সাত টাকা কমিয়ে ১১৭ টাকা করা হয়েছে। ফলে ডলারের বিপরীতে একদিনে টাকার সর্বোচ্চ দরপতন হয়েছে।

দ্বিতীয়টি হলো—ব্যাংক খাতে ঋণের সুদ হার পুরোপুরি বাজারভিত্তিক করা হয়েছে। ফলে চার বছর আগে ব্যাংকগুলোর ওপর আরোপিত 'কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল মেকানিজম' থেকে এটি একটি বড় পরিবর্তন আনা হলো।

এ ছাড়াও, বাংলাদেশ ব্যাংক নীতি সুদহার ৫০ বেসিস পয়েন্ট বাড়িয়ে সাড়ে আট শতাংশ করেছে। এ নিয়ে এ বছরে দ্বিতীয়বার সুদহার বাড়ানো হলো।

এই তিন সিদ্ধান্ত জন্য আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণের শর্তের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রানীতি কমিটির মতে, বাংলাদেশের অর্থনীতি দুটি গুরুতর চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। একটি হচ্ছে ক্রমবর্ধমান উচ্চ মূল্যস্ফীতি, অন্যটি রিজার্ভ কমে যাওয়া।

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, টাকার বিনিময় হার স্থিতিশীল রাখা ও রিজার্ভ কমে যাওয়া ঠেকাতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকার ইতোমধ্যে বেশকিছু উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু মূল্যস্ফীতি এখনো বেশি। আবার রিজার্ভ পরিস্থিতিও কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় বাড়ছে না বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

গত বছরের মার্চ থেকে মূল্যস্ফীতি নয় শতাংশের বেশি। গত দুই বছরে ডলারের বিপরীতে টাকার দাম ৩৫ শতাংশ কমেছে। রিজার্ভ কমেছে অর্ধেকেরও বেশি। ফলে দেশে অর্থনৈতিক সংকট তৈরি হয়েছে। তাই ক্রমবর্ধমান ব্যয় মেটাতে কর ও কর আদায়ের পরিধি বাড়ানো চেষ্টা করা হচ্ছে।

ক্রিস পাপাজর্জিওর নেতৃত্বাধীন আইএমএফের প্রতিনিধি দল ১৫ দিনের বাংলাদেশ সফর শেষে তৃতীয় কিস্তির ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে। আইএমএফ প্রতিনিধি দল এই সফরে ঋণ কর্মসূচির দ্বিতীয় পর্যালোচনার প্রেক্ষাপটে অর্থনৈতিক ও আর্থিক নীতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

এক বিবৃতিতে পাপাজর্জিও বাংলাদেশ ব্যাংকের এসব উদ্যোগকে 'সাহসী' উদ্যোগ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এসব সিদ্ধান্তের অন্যতম লক্ষ্য হলো- টাকার বিনিময় হার পুনর্বিন্যাস ও ক্রলিং পেগ পদ্ধতি চালু করা।

স্মার্ট হার বাতিলের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মাহবুবুর রহমান বলেন, 'এখন সুদের হার হবে বাজারভিত্তিক।'

যেহেতু নীতি সুদহার সংশোধন করা হয়েছে এবং স্মার্ট হার বাতিল হয়েছে, তাই সুদের হার বাড়তে পারে। এটি ঋণের সুদ বাড়াবে। তাই এই সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংককে চাহিদা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে পারে। তবে যারা ঋণ নেবেন তাদের জন্য একটি ধাক্কা।

একইভাবে ডলারের বিনিময় হার বাড়িয়ে দেওয়ায় তা রপ্তানিকারক ও প্রবাসীদের জন্য আশীর্বাদ হতে পারে। কারণ তারা ডলারের বিপরীতে বেশি টাকা পাবেন। যদিও আমদানিকারকদের পণ্য আমদানি করতে বেশি টাকা খরচ করতে হবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এইচ

আরো পড়ুন

banner image
banner image