• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২৫ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image
website logo

বিরামপুরে সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের বেহাল দশা


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০৭ মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১২:৫৩ পিএম
বিরামপুরে
সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের বেহাল দশা

এম,ডি রেজওয়ান আলী, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুর বিরামপুর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের বেহাল দশা,জমি ক্রয় বিক্রয়কারীদের ভোগান্তির শিকারের অভিযোগ উঠেছে।

৬ মার্চ বিরামপুর উপজেলা সাব রেজিস্ট্রি অফিসে জমি ক্রয় বিক্রয় কারীদের ভোগান্তির শিকারের অভিযোগ উঠেছে বলে জানা যায়।

সরজমিনে জানা যায় উক্ত সাব রেজিস্ট্রি অফিস সপ্তাহে চলে ২দিন। এতে করে জমি ক্রয় বিক্রয়কারীগণ ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হচ্ছে। জানা গেছে,জনবল সংকটে বিরামপুর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার পদ শূন্য থাকায় অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন মো.মনসুর আলী। 

তিনি বিরামপুর উপজেলায় সপ্তাহে দু’দিন জমি ক্রয় বিক্রয়ের রেজিস্ট্রি দলিল করে থাকেন। এ বিষয়ে উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়,সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে সরকারিভাবে স্থায়ী পদ ৫টি। এগুলোর মধ্যে পূর্বের সাব-রেজিস্ট্রার বদলি হলে পদটি শূন্য হয়ে যায়।

এ ছাড়াও কার্যালয়ে তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণির পদও শূন্য রয়েছে। এদিকে গ্রাহদের  দলিল প্রস্তুতির জন্য নকলনবিশ পদে এবং'নো ওয়ার্ক নো পেমেন্ট’ পদে ১৭ জন সহায়তাকারী কাজ করছেন। দিন চুক্তিতে একজন নৈশপ্রহরী ও একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী কাজ করছেন। সব মিলিয়ে এই সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে জনবল সংকট রয়েছে। দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ জানান, ঘন ঘন বৈদ্যুতিক লোডশেডিং হওয়ায় দলিল লিখতে বিলম্ব হচ্ছে। অপরদিকে সাব-রেজিস্ট্রার সপ্তাহে দু’দিন অফিস করায় জমি ক্রেতা-বিক্রেতার ভোগান্তি হচ্ছে।

উপজেলার অনেক ভুক্তভোগী জানান,দলিল করতে এসে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করতে হচ্ছে। সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের নিয়মিত কর্মকর্তা না থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন। ছায়া দলিল নিতে আসা একজন জানান, স্থায়ীভাবে সাব-রেজিস্ট্রার না থাকায় জমি বেচাকেনায় গ্রাহকদের ভোগান্তি  তো আছেই,সাব-রেজিস্ট্রার না থাকায় গ্রাহককে রেকডরুম থেকে ছায়া কপি বা নকল দলিল উত্তোলন করতে অনেক দিন অতিবাহিত হচ্ছে। জনবল সংকট থাকার কারণে নির্ধারিত সময়ে কাঙ্খিত জমির দলিল সম্পাদিত কাজে বিলম্বিত হচ্ছে।

সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক অফিস সহায়ক বলেন, ‘সাব-রেজিস্ট্রার কর্মকর্তার পদটি শূন্য হওয়ায় পার্শ্ববর্তী উপজেলা পার্বতীপুরের সাব-রেজিস্ট্রার কর্মকর্তা মো.মনসুর আলী (অতিরিক্ত দায়িত্ব) হিসেবে দুই কর্মদিবস বিরামপুরে জমি রেজিস্ট্রি সম্পাদন করেন। সাব-রেজিস্ট্রার কর্মকর্তা মনসুর আলী এ বিষয়ে বলেন,আমি সরকারি চাকরি করি, আমার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা যেখানে আমাকে দায়িত্ব দেন,আমি সেখানেই সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করি।

এ বিষয়ে বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরিমল কুমার সরকার জানান, সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়টি ইতোপূর্বে উপজেলা চত্বরে ছিল,যাহা ২০২২ সালের ১৭ এপ্রিল মির্জাপুর মৌজার মির্জাপুর মোড়ে আঞ্চলিক সড়ক সংলগ্ন নতুন ভবনে স্থানান্তর করা হয়েছে। 

সাব-রেজিস্ট্রার পদটি বদলিজনিত কারণে শূন্য হয়। কিছু জনবল সংকট রয়েছে। এ বিষয়ে জেলা রেজিস্ট্রারসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জনবলের প্রয়োজনীতার  কথা জানানো হয়েছে বলে জানান।

ঢাকানিউজ২৪.কম / কেএন

আরো পড়ুন

banner image
banner image