• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৪ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

কেন মসজিদে লাউড স্পিকার ব্যবহার করবো না: ওমর আবদুল্লাহ


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: রবিবার, ০১ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৮:৫৭ পিএম
এমন একটি দেশের সঙ্গে যুক্ত হয়েছি
জম্মু-কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ

নিউজ ডেস্ক:  জম্মু-কাশ্মির এখন ভারতের একটি অংশ। কিন্তু যে আশা নিয়ে অঞ্চলটি ভারতের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে, সেটি পূর্ণতা পায়নি বলে অভিযোগ কাশ্মিরের ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লাহ বলেছেন, যদি তারা জানতেন মুসলিমদের অধিকার ভারতে রক্ষা হবে না, তাহলে সিদ্ধান্ত অন্য কিছু হতো। খবর প্রকাশ করেছে এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বুধবার (২৭ এপ্রিল) শ্রীনগরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে জম্মু-কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ বলেন, ‘যখন আমরা ভারতে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, তখন আমরা এমন একটি দেশের সঙ্গে যুক্ত হয়েছি, যেখানে প্রতিটি ধর্মের প্রতি সমান আচরণ করা হবে। আমাদেরকে বলা হয়নি যে, একটি ধর্ম অগ্রাধিকার পাবে এবং অন্যদের দমন করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘যদি আমরা এটা জানতাম, তাহলে সম্ভবত আমাদের সিদ্ধান্ত অন্য কিছু হতো। আমরা সচেতনভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যখন আমাদের বলা হয়েছিল যে, প্রতিটি ধর্ম সমান অধিকার পাবে।’

সাম্প্রতিক সময়ে ভারতের মহারাষ্ট্র, কর্ণাটক ও মধ্যপ্রদেশে মসজিদে মাইকে আজান দেওয়া, বোরকা নিষিদ্ধ ও হালাল মাংস বিক্রি নিয়ে নানা বিতর্ক চলছে। সে বিষয়েও কথা বলেছেন জম্মু-কাশ্মিরের সাবেক এই মুখ্যমন্ত্রী।

ওমর আবদুল্লাহ বলেন, ‘কেন আমরা মসজিদে লাউড স্পিকার ব্যবহার করতে পারবো না? যদি অন্য ধর্মের পবিত্র স্থানগুলোতে ব্যবহারের অধিকার থাকে, মসজিদে কেন নয়? আপনারা আমাদেরকে বলেন, হালাল মাংস বিক্রি করবেন না। কেন? আমাদের ধর্ম আমাদেরকে হালাল মাংস খাওয়ার অনুমতি দেয়। কেন আপনারা এটা বন্ধ করতে চাচ্ছেন?’

‘আমরাতো আপনাদেরকে হালাল মাংস খেতে বাধ্য করছি না। কোনো মুসলিম কি আপনাদের হালাল মাংস খেতে বাধ্য করেছে? আপনি যেভাবে খেতে চান সেভাবে খান এবং আমরা আমাদের পছন্দমতো করবো,’ যোগ করেন তিনি।

মুসলমানরা কখনোই মন্দির অথবা অন্য ধর্মীয় স্থানে লাউড স্পিকার ব্যবহার নিয়ে আপত্তি করেনি বলেও দাবি করেন ওমর আবদুল্লাহ। কাশ্মিরের এই নেতা বলেন, ‘আমরা আপনাদের কখনোই বলি না যে মন্দিরে কোনো মাইক থাকা উচিত নয়। মন্দির ও গুরুদ্বারে মাইক ব্যবহার করবেন না। আপনারা কেবল আমাদের মাইক নিয়ে আপত্তি জানাচ্ছেন। আমাদের ধর্মে আপনারা বিচলিত হন। আপনারা আমাদের পোশাক পছন্দ করেন না, আমরা যেভাবে প্রার্থনা করি তাও। অন্য কারো সঙ্গে আপনাদের সমস্যা নেই। তারা ঘৃণা ছড়াচ্ছে।’

ঢাকানিউজ২৪.কম /

আর্ন্তজাতিক বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image