• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ১৬ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • সরকারি নিবন্ধন নং ৬৮

Advertise your products here

banner image

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৬ উইকেটে হারিয়ে শুভ সূচনা বাংলাদেশের


ঢাকানিউজ২৪.কম ; প্রকাশিত: সোমবার, ১১ জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৭:৫১ এএম
বিসিবি
বাংলাদেশ বনাম ওয়েষ্ট ইন্ডিজ খেলার ছবি

নিউজ ডেস্ক: অবশেষে এল অধরা জয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে না বাংলাদেশকে। উইন্ডিজের মাটিতে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টিতে বাজেভাবে হারার পর খালি হাতে দেশে ফেরার যে শঙ্কার মেঘ জমেছিল টাইগারদের আকাশে, অবশেষে কেটেছে সেই মেঘ।

ফরম্যাট বদলের সঙ্গে যেন বদলে গেল বাংলাদেশ দলও। নিজেদের সেরা ফরম্যাটের শুরুটা বাংলাদেশ রাঙিয়েছে জয় দিয়ে। তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে সফরকারীরা জয় বাগিয়েছে ৬ উইকেটে। এর ফলে ১-০ তে সিরিজে এগিয়ে গেল তামিম বাহিনী।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের করা ১৪৯ রানের জবাবে ৬ উইকেট ও ৫৫ বল অক্ষত রেখে জয় পায় টাইগাররা।

১৫০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে লিটন দাসকে হারিয়ে হোঁচট খেলেও তামিম ইকবাল ও নাজমুল হোসেন শান্তর দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে পথ ফিরে পায় বাংলাদেশ।

দুইজনের অবিচ্ছেদ্য ৪০ রানের জুটিতে স্বস্তিতে ছিল টাইগার শিবির। তবে দুর্ভাগ্যবশত তামিমের রান আউটের ফলে ভাঙে জুটি। মাঠ ছাড়ার আগে তামিমের ব্যাট থেকে আসে ২৫ বলে ৩৩ রানের ইনিংস।

তামিম মাঠ ছাড়লেও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যান শান্ত। ৪৬ বলে ৩৭ রান করে সাজঘরের পথ ধরতে হয় তাকে।

অল্পতে ফিরতে হয় আফিফকেও। উইকেটের একপ্রান্ত আগলে ধরে রেখে ব্যাট চালাতে থাকেন মাহমুদউল্লাহ। নুরুল হাসান সোহানকে সঙ্গে করে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি।

৪১ রানে অপরাজিত থাকেন রিয়াদ। তাকে ২০ রানে সঙ্গ দিচ্ছিলেন নুরুল হোসেন সোহান।

এর আগে গায়ানায় ম্যাচের শুরুতে আঘাত হানে বৃষ্টি। যার ফলে নির্ধারিত সময়ের দুই ঘণ্টা ৪৫ মিনিট পর মাঠে গড়ায় খেলা। বৃষ্টিতে ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমে আসে। দুই দলে সুযোগ পায় ৪১ ওভার করে খেলার।

টসে জিতে বল করতে নেমে শুরু থেকে উইন্ডিজ ব্যাটারদের ওপর চড়াও হন টাইগার বোলাররা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে শাই হোপকে রানের খাতা খোলার আগে সাজঘরে ফিরিয়ে শুভ সূচনা করেন মুস্তাফিজুর রহমান।

দ্রুত উইকেট পতনের ধাক্কা সামাল দিতে এরপর দেখেশুনে ব্যাটিং শুরু করেন কাইল মায়ার্স ও শামার ব্রুকস। তাদের ব্যাটিংয়ে সাময়িক সময়ের জন্য পতন থামে উইন্ডিজের উইকেটের।

ম্যাচের দ্বাদশ ওভারে দলীয় ৩২ রানে ব্রেক থ্রু এনে দেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কাইল মায়ার্সকে ১০ রানে পথ ধরতে বাধ্য করেন সাজঘরের।

ম্যাচের একুশতম ওভারে শরিফুল ইসলামের ব্যাক টু ব্যাক আঘাতে সাজঘরে ফেরেন ব্রেন্ডন কিং ও ব্রুকস। মাঠ ছাড়ার আগে কিংয়ের ব্যাট থেকে আসে ৮ রান ও ব্রুকসের ৩৩।

এরপর শুরু হয় উইন্ডিজ শিবিরে আসা যাওয়ার মিছিল। একে একে সেই মিছিলে শামিল হয়ে মাঠ ছাড়েন রভম্যান পাওয়েল (৯), নিকোলাস পুরান (১৮), আকিল হোসেন (৩), রোমারিও শেফার্ড (১৬) ও গুডাকেশ মোতি (৭)। এতে করে ১১০ রান তুলতে ক্যারিবীয়রা হারায় ৯ উইকেট।

শেষদিকে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন অ্যান্ডারসন জোসেফ ও জেইডন সিলস। কিন্তু দলকে বেশিদূর টেনে নিয়ে যেতে পারেননি তারা। ৪১ ওভারে ৯ উইকেটের খরচায় ১৪৯ রান তুলতে থেমে যায় উইন্ডিজের ইনিংসের চাকা।

বাংলাদেশের হয়ে ৪ উইকেট নেন শরিফুল ইসলাম। ৩ উইকেট যায় মেহেদী মিরাজের ঝুলিতে। আর ১টি উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান।

ঢাকানিউজ২৪.কম / এসডি

খেলা বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

banner image
banner image